বাউফল উপজেলা পরিষদে জমজমাট ইট-সুরকির ব্যবসা

Bauphal Photo
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলা পরিষদ চত্বরে জমে উঠেছে ইট-সুরকির ব্যবসা। একটি প্রভাবশালী মহল সরকারি জমি দখল করে দীর্ঘদিন থেকে ইট-সুরকির ব্যবসা করায় সরকারি ৩টি অফিসের কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। তবে বিষয়টি নিয়ে মাথাব্যাথা নেই স্থানীয় প্রশাসনের। 

জানা যায়, অবৈধভাবে সরকারি অফিস চত্বরের জমি দখল করে ব্যবসা করছেন স্থানীয় কয়েকজন প্রভাবশালী। ইট সুরকির ব্যবসা করায় ওই এলাকায় সবসময়ই লোকে লোকারণ্য থাকে। ইট নিতে টমটমসহ বিভিন্ন যানবাহন আসায় হচ্ছে শব্দদূষণ। যে কারণে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয় ও বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। এছাড়াও পাশে থাকা একটি বিদ্যালয়ের পাঠদান বিঘ্নিত হচ্ছে।

উপজেলা শিক্ষক সমিতির এক নেতা বলেন, মাধ্যমিক অফিসের ট্রেনিং সেন্টারে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণকালীন শব্দ দূষণের কারণে সীমাহীন সমস্যা হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে উপজেলা প্রশাসনের এক কর্মকর্তা বলেন, বাউফল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের শেল্টারে কতিপয় ব্যবসায়ী উপজেলা পরিষদ চত্বরের জমি দখলের পর ইট সুরকির ব্যবসা করছেন।

এ অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা চেয়ারম্যান হাজী মজিবর রহমান মুন্সি বলেন, কারা এই ব্যবসার সঙ্গে জড়িত তা আমার জানা নেই।

এ প্রসঙ্গে বাউফলের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) আবু সুফিয়ান বলেন, খুব শিগগিরই উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে ইট সুরকি ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ করা হবে।

ad