বাগেরহাটে আশ্রয়কেন্দ্র থেকে বাড়ি ফিরছে মানুষ

bagerhat
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: বাগেরহাটের আশ্রয়কেন্দ্রগুলো থেকে বাড়ি ফিরতে শুরু করেছে আশ্রয় নেয়া ৩৪ হাজার মানুষ।

মঙ্গলবার (৩০ মে) সকালে ঘূর্ণিঝড় মোরা’র প্রভাব কিছুটা কমে গেলে আশ্রয় নেয়া বৃদ্ধ, নারী-পুরুষ ও শিশু-কিশোররা নিজ নিজ বাড়ি ফিরতে শুরু করে।

ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’র প্রভাবে বাগেরহাটে দমকা হাওয়া ও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হলে সোমবার রাতে উপকূলীয় এলাকার মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে ছুটে আসে। ঘূর্ণিঝড় মোরা আতঙ্কে এসব এলাকার মানুষের নির্ঘুম রাত কাটে। অনেকে না খেয়ে রাতে রোজা রেখেছেন।

জেলা প্রশাসনের হিসেব অনুযায়ী, বাগেরহাটের উপকূলীয় মোংলা, শরণখোলা, মোরেলগঞ্জ ও রামপাল উপজেলার প্রায় ৩৪ হাজার মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে ওঠে।

বাগেরহাট জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাস বলেন, ঘূর্ণিঝড় মোরা মোকাবিলায় উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়। বাতিল করা হয় জেলার সব সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি। খোলা হয় ১০টি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ এবং গঠন করা হয় ৮৩টি মেডিকেল টিম। জেলার ২৩৪টি আশ্রয়কেন্দ্র খুলে দেওয়া হয়। সরকারি বিভিন্ন সংস্থার পাশাপাশি বেসরকারি সেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মীরা মাঠ পর্যায়ে থেকে লোকজনকে আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে সহযোগিতা করে।

তিনি আরো বলেন, সোমবার সন্ধ্যা থেকে বাগেরহাটের চার উপজেলার প্রায় ৩৪ হাজার মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে ওঠে। মঙ্গলবার সকালে আবহাওয়া স্বাভাবিক হতে শুরু করলে সবাই নিজ নিজ ঘর-বাড়িতে ফিরতে শুরু করেছে। তারপরও সবাইকে সর্তক অবস্থায় থাকতে বলা হয়েছে।

ad