বিলুপ্ত ছিটমহলে মোমবাতি জ্বালিয়ে বর্ষপূর্তি পালন

Jagoran- Extinct enclaves, candles, anniversary,
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: ৬৮ বছরের বন্দী দশা থেকে মুক্তি পাওয়া লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার বিলুপ্ত ছিটমহলে (সদ্য বাংলাদেশীরা) বাসিন্দারা তৃতীয় বর্ষপূর্তি পালন করছে।

বুধবার (১ আগস্ট) রাত ১২টা ১ মিনিটে হাতীবান্ধা আজিমপুর উত্তর গোতামারী মঈনুল হক মাধমিক বিদ্যালয় মাঠে “পিতার হাতে চুক্তি, মেয়ের হাতে মুক্তি” এই স্লোগানে ৬৮টি মোমবাতি ও ৩টি মশাল প্রজ্জ্বলন করেন তারা।

এর আগে মঙ্গলবার (৩১ জুলাই) রাত ১০টায় অনুষ্ঠিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বিলুপ্ত ছিটমহলের শিশু, কিশোররা গান নৃত্য পরিবেশন করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- বিলুপ্ত ভারত-বাংলাদেশ ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির সভাপতি মঈনুল হক, লালমনিরহাট জেলা সম্পাদক আজিজুল ইসলাম আশিক, হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর ফারুক প্রমুখ।

এ সময় বিলুপ্ত ভারত-বাংলাদেশ ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির সভাপতি মঈনুল হক সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশ সরকার শেখ হাসিনার পিতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইন্দিরা-মুজিব চুক্তি করেন। আর তা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাস্তবায় করেন। এর ফলে ৬৮বছরের বন্দিদশা থেকে মুক্তি পায় হাজার হাজার মানুষ। আমরা নতুন বাংলার বাসিন্দারা বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার কাছে চিরকৃতজ্ঞ।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের ৩১ জুলাই মধ্যরাত ১২টা ১ মিনিটে আনুষ্ঠানিক ঘোষণার মাধ্যমে ছিটমহলগুলোকে বিলুপ্ত ঘোষণা করে সরকার। আর এই ঘোষণার মধ্যদিয়ে শেষ হয় ছিটমহলবাসীর ৬৮ বছরের লাঞ্চনা-বঞ্চনার বন্দী জীবন।

ad