ভাঙা সড়ক; পুঠিয়ায় দীর্ঘ যানজটে চরম যাত্রী দুর্ভোগ

puthiya janjot
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: রাজশাহীর পুঠিয়ার ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে ১০ কিলোমিটার জুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়ে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে যাত্রী সাধারণ। সময়মত গন্তব্যে পৌঁছাতে না পেরে অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

জানা যায়, ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের পুঠিয়া বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় চলতি মাসের শুরু থেকে মহাসড়কে ব্যাপক ভাঙন দেখা দেয়। এ কারণে প্রায় দিনই রাস্তার দু’পাশ্বে চার কিলোমিটার পর্যন্ত যানবাহনের দীর্ঘ লাইন লেগে থাকে। এতে প্রায় সময়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। কর্তৃপক্ষও সড়কটি মেরামতে নিচ্ছে না কোন ব্যবস্থা।

সোমবার (১৪ আগস্ট) সকাল ১০টায় পুঠিয়া বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, গুড়িগুড়ি বৃষ্টির কারণে পুরো মহাসড়ক জুড়ে ১০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত কাঁদামাটির স্তুপ হয়ে আছে। সড়ক ও জনপথের কিছু লোকজন রাস্তায় ইট এবং বালি দিয়ে ভাঙাচোরা স্থানগুলো মেরামতের চেষ্টা করছেন। হাইওয়ে ও ট্রাফিক পুলিশের দায়িত্বহীনতার কারণে বাসষ্ট্যান্ড এলাকার বিভিন্ন যানবাহন চালকরা ছত্রভঙ্গ হয়ে গাড়ি চালাচ্ছেন। আর এতে করেই মহাসড়কে যানজটের দেখা দিচ্ছে। আর এতে করে চরম ভোগান্তিতে পরছেন মুমূর্ষ রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স, দুরপাল্লার বিভিন্ন যানবাহন ও যাত্রীরা।

রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী রজনীগন্ধ্যা পরিবহনের চালক গিয়াস উদ্দীন বলেন, রাজশাহী থেকে ঢাকা পর্যন্ত প্রায় বেশীরভাগ স্থানে এখন ভাঙাচূরা। এর মধ্যে সব সময় টাঙ্গাইল সড়কে যানজট লেগে থাকে। বর্তমানে কিছুদিন যাবত দেখছি পুঠিয়া বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় যানবাহনের দীর্ঘ লাইন লেগে থাকে। কোনো কোনো দিন বাসষ্ট্যান্ড এলাকা পার হতে এক ঘন্টার বেশী সময় লেগে যায়।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে রাজশাহী জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগের একজন প্রকৌশলী বলেন, রাজশাহী জেলার মধ্যে পুঠিয়া বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় মহাসড়কে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ওইখানে রাস্তা সংস্কারের জন্য গত কয়েকদিন যাবত আমাদের লোকজন কাজ করছেন। তবে বৃষ্টিপাতের কারণে মেরামত করা স্থানগুলো বেশী দিন টেকসই হচ্ছে না।

এ ব্যাপরে পবা হাইওয়ে পুলিশ (শিবপুরহাট ফাঁড়ী) ইনচার্জ ও উপ-পরিদর্শক হারিবুর রহমান হাবিবের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

ad