ভোলায় নতুন কমিটি নিয়ে যুবদলের দু’পক্ষে ব্যাপক উত্তেজনা

Bhola jubodol
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: ভোলা জেলা যুবদলের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। জেলা যুবদল অফিস দখলে রাখতে নবগঠিত কমিটি ও পদবঞ্চিত কমিটি মরিয়া হয়ে উঠেছে। পাল্টা পাল্টি চলছে যুবদল অফিস দখলের খেলা।

জানা যায়, পদবঞ্চিতরা গত ৩ দিন জেলা যুবদল অফিসে তালা ঝুলিয়ে দেয়ার পর এবার আজ মঙ্গলবার সকালে নব গঠিত কমিটি শো-ডাউন করে মাঠে নেমে আনন্দ মিছিল করে। এ সময় তারা তালা ভেঙে যুবদল অফিস দখলে নিলেও কিছুক্ষণ পরই ফের তালা দেয় পদবঞ্চিত গ্রুপ। এছাড়াও জেলা বিএনপি কার্যালয় গত ৪ দিন ধরে তালা ঝুলছে। এ পরিস্থিতে ব্যাপক সংঘর্ষের আশঙ্কা করছে স্থানীয়রা।

দলীয় সূত্র জানায়, গত ১ জুন ঢাকা থেকে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ভোলা জেলা যুবদলের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়।  কমিটিতে জামালউদ্দিন লিটনকে সভাপতি, ফকরুল ইসলাম ফেরদৌজকে সিনিয়র সহ-সভাপতি, আবদুল কাদের সেলিমকে সাধারণ সম্পাদক, মনির হোসেনকে সাংগঠনিক সম্পাদক, মোস্তফা কামাল ও জিয়াউর রহমান পলাশকে যুগ্ম-সম্পাদক করা হয়েছে। ২ জুন এ খবর ছড়িয়ে পড়লে যুবদলের সভাপতি পদ প্রত্যাশী  তরিকুল ইসলাম কায়েদ ও সম্পাদক পদ প্রত্যাশী কবির হোসেন গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

ওই দিন দুপুরে ভোলা শহরের মহাজনপট্টির বন্ধ জেলা যুবদলের কার্যালয়ে তালার ওপর তালা এবং জেলা বিএনপির কার্যালয়েও তালা ঝুলিয়ে দেন যুবদলের পদ-বঞ্চিত নেতারা। পরে তারা জুতা হাতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন এবং কেন্দ্রীয় যুবদলের সভাপতি সাইফুল আরব নিরব ও যুবদলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নুর ইসলাম নয়নকে ভোলায় অবাঞ্চিত ঘোষণা করেন। এরপর ৪ জুন আবার সাংবাদিক সম্মেলন করে কেন্দ্রীয় যুবদলের সভাপতি সাইফুল আরব নিরবের বিরুদ্ধে ৫০ লাখ টাকা উৎকোচ নেয়ার অভিযোগ করে তার পদত্যাগের দাবি জানান এবং শহরে ঝাড়ু মিছিল করে নতুন কমিটি বিলুপ্ত করার দাবি তোলা হয়।

এর চারদিন পর আজ সকালে নব গঠিত যুবদলের নেতৃবৃন্দ শো-ডাউন করে মাঠে নামে। সদ্য ঘোষিত জেলা কমিটির সভাপতি জামাল উদ্দিন লিটন ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের সেলিমের নেতৃত্বে এই মিছিল বের করা হয়। পরে আনন্দ মিছিল বের করতে গেলে পুলিশের বাঁধার মুখে পড়ে পণ্ড হয়।

পদবঞ্চিত তরিকুল ইসলাম কায়েদ বলেন, তারা মাঠে শক্ত অবস্থানে রয়েছেন। কমিটি বাতিল না হলে তারা পিছপা হবেন না।

ভোলার গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক শহিদুল ইসলাম বলেন, যুবদলের নেতারা শহরের বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করলে ঈদ মার্কেটের নিরাপত্তার স্বার্থে এবং শহরের জানজট কমাতে পুলিশ মিছিল ছত্রভঙ্গ করে দেয়। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

ad