ময়মনসিংহে বসতভিটা নিয়ে হামলায় নিহত ১

Mymonsingh
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে বসতভিটা দখলকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় জালাল উদ্দিন (৫০) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (৩ মে) বিকালে উপজেলার পাগলা গ্রামে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

এ সময় হামলায় গুরুতর আহত হয়েছে আরও তিনজন। আহতদেরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ ও নিহতের স্বজনরা জানায়, পাগলা গ্রামের আব্দুল আওয়ালের ছেলে তারা মিয়ার বসতভিটা নিয়ে প্রতিবেশী আনোয়ার হোসেনের দুই ছেলে খায়রুল ও এমদাদের সাথে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।

বৃহস্পতিবার বিকালে খায়রুল ও এমদাদ লোকজন নিয়ে ওই বসতভিটার জমি দখলে নিতে যায়। তারা মিয়া বাড়িতে না থাকায় তারা মিয়ার প্রতিবেশী চাচাত ভাই আব্দুল জলিল লোকজন নিয়ে বাধা দেয়।

এ সময় প্রতিপক্ষের লোকজন সশস্ত্র অবস্থায় আব্দুল জলিল, তার মেয়ে লাকি আক্তার (২৫), ফিরোজা খাতুন (৬০), তার ছেলে নয়ন মিয়ার (৪২) ওপর হামলা চালায়। এতে তারা গুরুতর আহত হন।

পরে স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে গফরগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পথে আব্দুল জলিল মারা যান। আহত তিনজনের অবস্থার অবনতি হলে তাদেরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় পাগলা থানা পুলিশ খায়রুলের পিতা আনোয়ার হোসেন ও মাতা পারুল বেগমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। থানায় হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

নিহত আব্দুল জলিলের ভগ্নিপতি শিপলু বলেন, খায়রুল ও তার ভাই এমদাদ পিছন দিক থেকে লোহার শাবল দিয়ে মাথায় আঘাত করে জলিল হত্যা করেছে। আমরা এর উপযুক্ত বিচার চাই।

পাগলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোখলেছুর রহমান আকন্দ বলেন, জমি সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য খায়রুলের বাবা-মাকে আটক করা হয়েছে। এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

ad