শাহজাদপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের অবহেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট ১১ 

Shahjadpur, Rural Electrification Office, Neglect, Electrification 11,
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের অবহেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ১১ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন কাউন্সিলরসহ তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

বুধবার (৬ জুন) দুপুর সোয়া ১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- কাউন্সিলর বেল্লাল হোসেন (৩৫), সবুজ মিয়া (২৬), ফজলু মিয়া (৫৫), মনির হোসেন (১৯),নাঈম হোসেন (১৮), রনি (২৮), নূর নবী (৩২), শামীম হোসেন (২৫) আকাশ (১৮), রুবেল আহমেদ (১৮) ও রাব্বি হোসেন (২২)।

আহতদের বাড়ি বগুড়ার ধুনট ও সারিয়াকান্দি উপজেলার নিজবলাই দক্ষিণপাড়া, পুকুরিয়া, পূর্ব সুজাইতপুর ও শাহজাদপুরের পাড়কোলা গ্রামে।

শাহজাদপুর পৌরসভার কাউন্সিলর বেল্লাল হোসেন জানান, উপজেলার পৌর এলাকার ৫নং ওয়ার্ড ও এর আশেপাশের এলাকায় সুপেয় পানি সরবরাহের জন্য শক্তিপুর ব্র্যাক অফিসের সামনে একটি গভীর নলকূপ স্থাপনের কাজ চলছিল। এ সময় নলকূপ স্থাপন কাজে ব্যবহৃত একটি লোহার ৬ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপ শাহজাদপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের আওতাভূক্ত সঞ্চালন লাইনের ওপর পড়ে যায়।

এ সময় ওই বিদ্যুৎ লাইনে বিদ্যুৎ ছিল না। তাৎক্ষণিকভাবে পৌর কাউন্সিলর বেল্লাল হোসেন শাহজাদপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের অভিযোগ কেন্দ্রে মোবাইল ফোনে বিষয়টি অবহিত করে এ লাইনে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখার অনুরোধ জানান।

Shahjadpur, Rural Electrification Office, Neglect, Electrification 11, b

প্রতি উত্তরে লাইনম্যান তানভির রহমান তাকে বলেন, বিষয়টি ডিজিএমকে জানাতে। কাউন্সিলর বেল্লাল হোসেন ডিজিএমকে ফোন করার পূর্ব মূহুর্তেই ওই সঞ্চালন লাইনে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়। এতে ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বেল্লাল হোসেন বোরিং মিস্ত্রী ও হেলপারসহ ১১ জন বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে গুরুতর আহত হন।

আহত সবাইকে শাহজাদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এরমধ্যে রুবেল আহমেদ ও রাব্বি হোসেনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে তাদের বগুড়া জিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

এ ঘটনার খবর পেয়ে শাহজাদপুর পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র নাসির উদ্দিনসহ কাউন্সিলররা সবার খোঁজ-খবর নেন। তারা গুরুতর আহত দু’জনকে অ্যাম্বুলেন্সে করে বগুড়া হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।

তারা বলেন, শাহজাদপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের অবহেলা ও খামখেয়ালির জন্য এ দুর্ঘটনার জন্য তারা দায়ী এবং দোষী। তাদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

শাহজাদপুর পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র নাসির উদ্দিন বলেন, কাউন্সিলর বেল্লাল একটু সুস্থ হয়ে উঠলেই পল্লী বিদ্যুতের দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এর আগে শাহজাদপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের অবহেলা, গাফিলতি, অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে গত ২৬ মে শনিবার উপজেলার বনগ্রামে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ লাইনে অটো ভ্যানে চার্জ দেয়ার সময় তামিম (৩) নামের এক শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়।

এ ঘটনার মাত্র ১২ দিনের মাথায় শাহজাদপুর পল্লী বিদ্যুতের চরম অবহেলা গাফিলতি ও অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে আবারও এ দুর্ঘটনা ঘটল।

শাহজাদপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ডিজিএম গোলাম মোস্তফা বলেন, আমি এ বিষয়ে অবগত নই। এই মাত্র জানলাম। মেয়র সাহেবের সাথে কথা বলে প্রয়েজনীয় ব্যবস্থা নেবো।

ad