‘সন্তানদের লাশ আর দেখতে চাই না’

gazipur
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: রাজধানীতে বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় গত পাঁচদিন ধরে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। রাজধানীতে শুরু হওয়া এ আন্দোলন ইতোমধ্যেই ছড়িয়ে পড়েছে সারাদেশে। এসব আন্দোলনে শুধু শিক্ষার্থীরাই না অংশ নিচ্ছে তাদের অভিভাবকরাও। গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী এলাকায় শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে ফ্যাস্টুন হাতে রাজপথে দাঁড়িয়েছেন মায়েরাও।

মায়েরা বলেন, আমরা রাজপথে সন্তানদের লাশ আর দেখতে চাই না।

তাদের ফ্যাস্টুনে লেখা ছিল- ‘সন্তানের রক্ত আর না, ‘প্রয়োজনে মায়েদের রক্ত নিন, তবুও ওদের বাঁচতে দিন।’, ‘আমি একজন মা, আমার সন্তানের রক্ত আর দেখতে চাই না।’

বৃস্পতিবার সকাল থেকে চান্দনা চৌরাস্তা, শিববাড়ি মোড়, টঙ্গীসহ বিভিন্ন স্থানে মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করে। এ সময় তারা গাড়ির চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স ও গাড়ির ফিটনেসের কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে। বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা শহরের শিববাড়ি মোড়ে মানববন্ধন কর্মসূচিও পালন করে। তারা দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনার তদন্ত ও সুষ্ঠু বিচার দাবি করে ৯ দফা মেনে নেয়ার আহ্বান জানায়।

গাজীপুরে স্থানীয় একটি কলেজের এক শিক্ষার্থী জানান, পুলিশ ঘুষ খেয়ে অপরিণত চালকদের গাড়ি চালাতে সহযোগিতা করছে। গাড়ির ফিটনেস এবং চালকের লাইসেন্স না থাকলেও তাদের গাড়ি চালাতে তারা সহায়তা করছে। এজন্য সড়ক-মহাসড়কে দুর্ঘটনা ঘটছে, মানুষ মরছে।

উল্লেখ্য, গত ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে জাবালে নূর পরিবহনের দুই বাসের রেষারেষিতে রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয় এবং ৭-৮ শিক্ষার্থী গুরুতর আহন হন। এই ঘটনার প্রতিবাদে সেদিন থেকেই সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা।

ad