সেই তমার এসএসসি জয়

Toma
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: ‘ভাসকুলার ম্যালফরমেশন’ রোগে আক্রান্ত তমা আক্তার দাখিল পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জিপিএ-৩.৪৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে স্থানীয় একটি মাদ্রাসা থেকে ২০১৮ সালের দাখিল পরীক্ষায় অংশ নেয়।

বিষয়টি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বাবুল হাছান নিশ্চিত করেছেন।

তমা দাখিল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ায় তার পরিবার আনন্দ প্রকাশ করেছেন। তমা টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার জশীহাটি গ্রামের হতদরিদ্র কৃষক আতাহার আলী ও শারমিন বেগম দম্পতির মেয়ে।

তমার ইচ্ছা উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে চাকরি করে পরিবারের হাল ধরবে।

তমার মা শারমিন বেগম বলেন, অনেকের আর্থিক সহযোগিতায় তমাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এখন টিউমার অনেকটাই কমে গেছে। তিনি তমার সুস্থতার জন্য সকলের কাছে  দোয়া চেয়েছেন।

জানা যায়, মুখের বাম পাশে টিউমার আকৃতির মাংসপিণ্ডি নিয়ে ১৯৯৭ সালে জন্ম নেয় তমা আক্তার। জন্মের পর স্বাভাবিক গতিতেই বেড়ে উঠে তমা, সাথে সাথে টিউমার আকৃতির মাংসপিণ্ডিটিও বড় হতে থাকে। ফলে স্বাভাবিক জীবনের ছন্দ হারিয়ে ফেলে তমা।

পরে অনেকের সহযোগিতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ড. ইকবাল মাহমুদ চৌধুরীর অধীনে ভর্তি হন। সেখানে চতুর্থ দফায় অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়েছে। এখনো চিকিৎসা চলছে তার।

ad