স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ, গ্রেপ্তার ২

gang rape video
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: নরসিংদীর পলাশে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের দৃশ্য মোবাইলে ধারণ করে তা ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে ২ যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (৩ এপ্রিল) পুলিশ তাদের পাঁচদিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করলে আদালত তাদের একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে সোমবার (২ এপ্রিল) বিকালে উপজেলার মালিতা গ্রাম থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- উপজেলার মালিতা গ্রামের ফজর আলী ভূঞার ছেলে ফয়সাল মিয়া (২০) ও সুলতানপুর গ্রামের আসাদ মিয়ার ছেলে রণি মিয়া (২০)।

পুলিশ ও নিপীড়নের শিকার স্কুলছাত্রীর পরিবারের লোকজন জানায়, পলাশ উপজেলার মালিতা গ্রামের এক স্কুলছাত্রীকে স্কুলে আসা যাওয়ার পথে রণি মিয়া এবং তার বন্ধু ফয়সাল মিয়া প্রতিনিয়ত উত্যক্ত করতো।

গত ১ এপ্রিল সকালে স্কুলের যাতায়াতের পথে ওই স্কুলছাত্রীকে কৌশলে ফয়সালদের বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নিয়ে রণি তাকে ধর্ষণ করে আর রণির বন্ধু ফয়সাল এই ধর্ষণের দৃশ্য মোবাইলে ধারণ করে। পরে ওই দৃশ্য মোবাইলের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়।

এ ঘটনায় স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে পর্ণোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে পলাশ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এরই প্রেক্ষিতে নিজ বাড়ি থেকে রণি ও তার বন্ধু ফয়সালকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এলাকাবাসী জানান, রণি প্রেমের কৌশলে ওই স্কুলছাত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে গড়ে তোলে। আর এই দৃশ্য বন্ধু ফয়সাল মোবাইলে ধারণ করে এলাকার উঠতি বয়সের ছেলেদের মোবাইলে মোবাইলে ছড়িয়ে দেয়। এতে স্কুল শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিরূপ প্রভাপ পড়েছে। তাই ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শান্তির দাবি জানান স্থানীয়রা।

পলাশ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বোরহান উদ্দীন বলেন, স্কুলছাত্রীকে কৌশলে ধর্ষণ করেছে গ্রেপ্তারকৃতরা। আর তার ভিডিও ছড়িয়ে দিয়ে স্কুলছাত্রীকে জিম্মি করার কৌশল করেছিল তারা। ঘটনার রহস্য উদঘাটনের জন্য গ্রেপ্তারকৃতদের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

ad