স্বরূপকাঠিতে ২০১৭ সালের প্রশ্নে পরীক্ষা!

Swarupkati, primary exam, 2017!
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিতে তৃতীয় শ্রেণির ‘বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়’ বিষয়ে প্রথম সাময়িক পরীক্ষার জন্য নতুন প্রশ্ন প্রনয়ন না করে ২০১৭ সালের প্রশ্ন হুবহু ছাপিয়ে তা দিয়ে পরীক্ষা নেয়া হয়েছে। পুরো প্রশ্নের মধ্যে ২০১৭ সালকে ২০১৮ করা ছাড়া একটি দাড়ি কমাও পরিবর্তন করা হয়নি।

মঙ্গলবার (২৪ এপ্রিল) অনুষ্ঠিত এ পরীক্ষার খবর ফেসবুকে প্রচারিত হওয়ার পরে প্রশ্ন সংগ্রহ করে দুটি প্রশ্নে হুবহু মিল পাওয়া যায়।

একাধিক শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, শিক্ষা অফিসে দায়সারা গোছের কর্মকাণ্ড চলছে। দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষা অফিসার না থাকায় সহকারী শিক্ষা অফিসার দায়িত্বে থাকার ফলে এ শিথিলতা এসেছে।

তারা বলেন, উপজেলায় একজন সহকারী শিক্ষা অফিসারের নেতৃত্বে পরীক্ষার প্রশ্ন প্রণয়ন কমিটি রয়েছে। তারা বিভিন্ন শিক্ষককে প্রশ্ন প্রণয়নের দায়িত্ব দেন। প্রতিটি বিষয়ে একাধিক শিক্ষকের কাছ থেকে প্রশ্ন সংগ্রহ করা হয়। এরপর অপর এক সহকারী শিক্ষা অফিসারের নেতৃত্বে মডারেট কমিটি রয়েছে। প্রতিটি ধাপে দায়িত্ব পালনকারীদেরকে সম্মানী দেয়া হয়। প্রতিটি ধাপ শেষ করে যাছাই বাছাইয়ের পর প্রশ্ন ছাপাতে দেয়ার নিয়ম।

প্রতিটি বিষয়ে একাধিক প্রশ্ন প্রণেতার কাছ থেকে প্রশ্ন সংগ্রহ করার কথা। যার একজন পঞ্চবেকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা রোজিনা বেগম। তিনি বলেন, তার কাছে প্রশ্ন চাওয়া হলে তার তৈরি করা অনেক প্রশ্নের মধ্য থেকে একটি প্রশ্ন প্রধান শিক্ষকের কাছে জমা দেন। ওই প্রশ্ন তার কিনা তিনি বলতে পারবেন না বলে জানান।

ওই ক্লাষ্টারের দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষা অফিসার মো. শাহাদাৎ হোসেন প্রশ্ন সংগ্রহ করে মডারেট কমিটির কাছে একটি মাত্র প্রশ্ন উপস্থাপন করেছিলেন বলে মডারেট কমিটির প্রধান সহকারী শিক্ষা অফিসার ইলিয়ার আলী জানান। তিনি বলেন, মডারেট করেন শিক্ষকরাই।

মডারেট কমিটির সদস্য কুনিয়ারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মাসুদা বেগম জানান, তার কাছে একটি মাত্র প্রশ্ন দেয়া হয়েছিল। তিনি বানান ভুল, ত্রুটি-বিচ্যুতি সংশোধন করেছেন। পূর্বের প্রশ্নের সঙ্গে মিলিয়ে দেখার সময় ও সুযোগ ছিল না।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) দিলদার নাহার জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। প্রকৃত অপরাধীকে খুঁজে বের করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবু সাঈদ বলেন, বিষয়টি জানার পর শিক্ষা অফিসারকে জিজ্ঞেস করা হয়েছে। শিক্ষা অফিসার তাকে বলেছেন- কে প্রশ্ন করেছেন তা চিহ্নিত করা গেছে। নিশ্চিত হয়ে ব্যবস্থা নেবেন।

ad