ব্যবসায়ী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা জানাবে এফবিসিসিআই

একাত্তরে জীবন বাজি রেখে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়া বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে যারা বর্তমানে বাংলাদেশের ব্যবসা খাতে অবদান রাখছেন তাদের সম্মাননা জানানোর উদ্যোগ নিচ্ছে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই।

বৃহস্পতিবার সকালে এফবিসিসিআইয়ের প্রেস, মিডিয়া ও কালচারাল অ্যাফেয়ার্স বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে। এফবিসিসিআইয়ের কার্যালয়ে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। কমিটির ডিরেক্টর ইনচার্জ ড. কাজী এরতেজা হাসান।

এফবিসিসিআই’র সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু ব্যবসায়ী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা জানানোর বিষয়টি তুলে ধরলে কমিটির ডিরেক্টর ইনচার্জ এ বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহণের পাশাপাশি সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন। এছাড়া দেশের সংবাদপত্রের সংকট মোকাবিলায় এফবিসিসিআই কাজ করবে বলেও বৈঠকে আলোচনা হয়।

মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বলেন, দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়াতে নানা ধরনের সংকট রয়েছে। বিশেষ করে নিউজপ্রিন্টসহ অন্যান্য কাঁচামালের দাম বৃদ্ধি সংবাদপত্রের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এসব সমস্যা চিহ্নিত করে তা সমাধান এবং সম্ভাবনাগুলো কাজে লাগাতে সুপারিশ তৈরি করা প্রয়োজন। তিনি এ বিষয়ে স্ট্যান্ডিং কমিটিকে আহ্বান জানান।

এছাড়া তিনি দেশব্যাপী ব্যবসায়ী মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা দেওয়ার পরিকল্পনার কথাও জানান। পাশাপাশি কমিটির সহায়তা প্রত্যাশা করেন।

সংগঠনের সহ-সভাপতি মো. আমিন হেলালী বলেন, দেশের অগ্রগতি অব্যাহত রাখতে গণমাধ্যমের উন্নয়নও জরুরি। তাই গণমাধ্যমের সংকট নিরসনে এফবিসিসিআইর পক্ষ থেকে সবধরনের নীতি সহায়তা দেওয়ার আশ্বাস দেন তিনি। দেশের বিজ্ঞাপনের বাজারকে সুসংহত করার ব্যাপারে স্ট্যান্ডিং কমিটির কাছে সুপারিশ প্রত্যাশা করেন তিনি।

কমিটির ডিরেক্টর ইনচার্জ ড. কাজী এরতেজা হাসান জানান, কাগজ ও কালির দাম বেড়ে যাওয়া সংবাদপত্রের জন্য সবচেয়ে বড় সংকট। অনলাইন পোর্টালের বিকাশের কারণে ছাপা সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপনের চাহিদাও আগের মতো নেই। এসব সংকট নিরসনের উদ্যোগ নেওয়ার আশ্বাস দেন তিনি। এছাড়াও ব্যবসায়ী মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা প্রদানের উদ্যোগে সর্বোচ্চ সহায়তার প্রতিশ্রুতিও দেন ড. কাজী এরতেজা।

প্রয়াত খ্যাতিমান সাংবাদিক ও লেখক আবদুল গাফফার চৌধূরীর সম্মানে প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধে অবদান রাখা ব্যক্তিত্বদের নিয়ে স্বল্পদৈর্ঘ তথ্যচিত্র নির্মাণেরও ঘোষণা দেন তিনি। এসময় তিনি দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে প্রধানমন্ত্রীর দিক-নির্দেশনায় বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা নির্মাণে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করার আহ্বান জানান।

কমিটির সদস্য পাসপোর্ট অধিদ্প্তরের সাবেক মহাপরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আব্দুল মাবুদ বঙ্গবন্ধুর চেতনাকে ধারণ করে ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে বাঙালি সংস্কৃতিকে লালন করে দেশের উন্নয়নের কাজ করার আহ্বান জানান।

বৈঠকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী এবং অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে সেমিনার আয়োজনের পরামর্শ দেন কমিটির সদস্য আক্কাস মাহমুদ। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন কমিটির চেয়ারম্যান এইচ আর ড. দেলোয়ার হোসেন রাজা। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কমিটির কো-চেয়ারম্যান মুনীর আহমেদ খান, মো. জাহাঙ্গীর আলম, সদস্য মাসুদ এ খান, মো. এমারত হোসেন সোহাগ, শেখ মঈনুদ্দীন রেজা আলী চৌধুরী, ইসমত জেরীন খান, মো. ইউসুফ খান। এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআই পরিচালক সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন, বিজয় কুমার কেজরিওয়াল।