বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ ৪ মে

'Bangabandhu Satellite-1', Launch, May 4,
ad

জাগরণ ডেস্ক: আগামী ৪ মে দেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট- ১’ মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হবে। ওইদিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার লঞ্চ প্যাড থেকে স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ করা হবে।

বুধবার (১১ এপ্রিল) স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ প্রতিষ্ঠান স্পেস এক্স নতুন তারিখের বিষয়টি জানায়।

এই কৃত্রিম উপগ্রহ স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল, ইন্টারনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান, ভি-স্যাট ও বেতারসহ ৪০ ধরনের সেবা দেবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ টেরিস্ট্রিয়াল অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হলে সারাদেশে নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ ব্যবস্থা বহাল থাকা, পরিবেশ যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবেই সেবা নিশ্চিত করবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ প্রকল্পের পরিচালক মো. মেসবাহুজ্জামান বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের জন্য আগামী ৪ মে সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ওই দিনই দেশের প্রথম কৃত্রিম এই উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করা হবে।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, নিজস্ব স্যাটেলাইটের অধিকারী বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসাবে বাংলাদেশের আত্মপ্রকাশ ঘটবে। এ ছাড়া এই স্যাটেলাইট স্থাপনের মাধ্যমে বাংলাদেশের যেমন নির্ভরতা কমবে অন্য দেশের ওপর, তেমনি দেশের অভ্যন্তরীণ টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আসবে।

তিনি বলেন, স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের সময় বাংলাদেশ থেকে ৪০ জনের মতো প্রতিনিধি উপস্থিত থাকবেন। ডাক এবং টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এবং তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। এছাড়া উপস্থিত থাকবেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সচিব।

বিশ্বের অন্যতম খ্যাতনামা স্যাটেলাইট নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান ফ্রান্সের থেলেস এলেনিয়া স্পেস বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটটি নির্মাণ করেছে। এটি তৈরির জন্য ২০১৫ সালের ১১ নভেম্বর বিটিআরসির সঙ্গে টার্ন কি পদ্ধতি কোম্পানিটির চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে ২ হাজার ৯০২ কোটি টাকা।

সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে এক হাজার ৫৪৪ কোটি টাকা এবং অবশিষ্ট এক হাজার ৩৫৮ কোটি টাকা বিডার্স ফাইনান্সিং-এর মাধ্যমে ব্যয় সংকুলান হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট নির্মাণ কাজ শেষ হয় ২০১৭ সালের অক্টোবরে। এর পর গত ডিসেম্বরে এর সার্বিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষ করে ওড়ার উপযোগী ঘোষণা করা হয়। এরই মধ্যে ১৬ ডিসেম্বর বৈরী আবহাওয়া এবং আরও কিছু যুক্তিযুক্ত বাস্তব পরিস্থিতি বিবেচনায় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের তারিখ পিছিয়ে যায়।

ad