অবসরের হিড়িক, এরপর কে?

iniesta
ad

স্পোর্টস ডেস্ক: বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় নিয়েছিল হট ফেবারিট জার্মানি। এরপর দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে একে একে  বিদায় নেয় আর্জেন্টিনা, পর্তুগাল ও স্পেন।  আর এরপরই শুরু হয় আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে তারকাদের অবসরের হিড়িক।

অবসরের সিদ্ধান্ত সর্বপ্রথম আসে আর্জেন্টিনার মিডফিল্ডার হাভিয়ের মাসচেরানোর থেকে। এই তারকা গত শনিবার ফ্রান্সের সাথে হারের ঘন্টা দুয়েক পরেই অবসরের ঘোষণা দেন। আর্জেন্টিনার হয়ে ১৪৭ ম্যাচ খেলেছেন ৩৪ বছর বয়সী এই তারকা।  অংশ নিয়েছেন মোট চারটি বিশ্বকাপে।

বয়সের কারণে অবসরের সিদ্ধান্তটা স্বাভাবিকই ছিল বার্সেলোনা ছেড়ে গত বছর চীনে পাড়ি জমানো মাসচেরানোর জন্য। তবে বিপত্তিটা হয়েছে আর্জেন্টিনার আরেক মিডফিল্ডার লুকাস বিগলিয়া অবসরের ঘোষণা দেওয়ার পর। এই তারকার বয়স মাত্র ৩০। এরই মধ্যে অবসরের ঘোষণা। স্বাভাবিকভাবেই একটি শ্রশ্ন ঘুরেফিরে আসছে।

তাহলে কি আর্জেন্টিনার ব্যর্থতার জন্য অবসর নিয়েছেন এই দুই তারকা। তবে তারা দু’জনই বিষয়টিকে উড়িয়ে দিয়েছেন। তাদের মতে, আর্জেন্টিনায় এখন অনেক তরুণ তারকা উঠে আসছে। তাদের সুযোগ দেয়ার জন্যই তাদের অবসর।

অপরদিকে, রবিবার রাশিয়ার বিপক্ষে হারের পর অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন স্পেনের মিডফিল্ডার আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা।  এই তারকার বয়স এখন ৩৪। তাই তার অবসরের সিদ্ধান্তটাও স্বাভাবিক। তবে প্রশ্ন উঠেছে এখনই কেন? তার হাতে তো ২০২০ ইউরো খেলার সুযোগ ছিল। তবে এ ব্যাপারে এখনো মুখ খোলেননি ইনিয়েস্তা।

এই তো গেল অবসরের সিদ্ধান্ত জানানোরদের কথা। এখন আসা যাক আর কারা কারা অবসরের সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। বাতাসে এখন জোর গুঞ্জন ভাসছে লিওনেল মেসি আর ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর অবসর নিয়ে। বিষ্লেষকদের ধারণা এই দুই তারকা যে কোনো সময় অবসরের ঘোষণা দিয়ে দিতে পারেন। কারণ দু’জনই বিশ্বকাপে নিজেদের দলকে টেনে নিয়ে যেতে ব্যর্থ হয়েছেন।

যদিও এই দুই তারকা বিশ্বকাপের আগে বলেছিলেন এখনই অবসর নয়। জাতীয় দলের হয়ে আরও খেলে যেতে চান তারা। তবে বিশ্বকাপের পর এখনো মুখে কুলুপ এঁটে আছেন তারা। অবসরের সিদ্ধান্ত আসতে পারে এমন তালিকাটা আরও দীর্ঘ। এই তালিকায় নাম রয়েছে ইংল্যান্ডের জেমি ভার্ডি, কলম্বিয়ার রাদামেল ফ্যালকাও, স্পেনের দিয়াগো কস্তা, ব্রাজিলের তিয়াগো সিলভা, জার্মানির মারেও গোমেজ, মেসুত ওজিলের মতো তারকারও। এখন দেখার বিষয় বিশ্বকাপ শেষে কার কার থেকে ঘোষণা আসে অবসরের।

ad