অভিষিক্ত বোলারদের বিপক্ষে বাংলাদেশের দুর্দশার চিত্র

ad
স্পোর্টস ডেস্ক, দৈনিক জাগরণ:

একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে অভিষেকে ৫ উইকেট শিকার করেছেন ১৩ জন বোলার। তাদের মধ্যে বাংলাদেশি আছে ২ জন- তাসকিন এবং মুস্তাফিজুর। ওই ১৩ জনের প্রথম জন, শ্রীলঙ্কার শাউল কারনাইনের যখন অভিষেক, বাংলাদেশ তখনও পা রাখেনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে।

বাকি ১০ জনের মধ্যে ৪ জন অভিষিক্ত বোলার বাংলাদেশের বিপক্ষে ৫ উইকেট নিয়েছেন।

২০০৩ সালের বিশ্বকাপে কানাডার করা ১৮০ রান তাড়া করতে গিয়ে ৬০ রানে পরাজিত হয় বাংলাদেশ। আর জয়ের নায়ক ছিলেন অভিষিক্ত বোলার কড্রিংটন। ২৭ রানে ৫ উইকেট নিয়ে এই পেসার কানাডাকে জয়ের পথ দেখায়।

২০১১ সালে এসে আবারও একই রকম অভিজ্ঞতা। ব্রায়ান ভিটরি নিলেন ৩০ রানে ৫ উইকেট। বাংলাদেশ হেরেছিল সেই ম্যাচ।

২০১৫ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বাংলাদেশ সফরের প্রথম ম্যাচে শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে গতি ও আগ্রাসনে বাংলাদেশকে কাঁপিয়ে দিলেন রাবাদা। অভিষেকেই হ্যাটট্রিক করলেন, গড়লেন অভিষেকে সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড। ১৬ রানে ৬ উইকেট! সেই ম্যাচও যথারীতি হেরেছিল বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে ইংল্যান্ডের জয়ের নায়ক অভিষিক্ত পেসার বল। যদিও দলে খেলার কথা ছিল না তার। কিন্তু ম্যাচের আগে বা পায়ের বুড়ো আঙুলের চোটে ছিটকে গেলেন লিয়াম প্লাঙ্কেট। সুযোগ পেয়ে বল নাম লেখালেন ইতিহাসে। ৫১ রানে নিয়েছেন ৫ উইকেট। এই প্রথম অভিষেক ওয়ানডেতে ৫ উইকেট পেলেন ইংল্যান্ডের কোন বোলার।

ad