গোল্ডেন বল-বুট-গ্লাভস জয়ের দৌড়ে এগিয়ে যারা

Glavs and boots
ad

স্পোর্টস ডেস্ক: ১৯৮২ সাল থেকে ফিফা চালু করেছিল গোল্ডেন বল, গোল্ডেন বুট ও গোল্ডেন গ্লাভস দেওয়ার রীতি। এরপর থেকে প্রতিটি বিশ্বকাপেই দেয়া হচ্ছে এ পুরস্কার। ফিফার নিয়ম অনুযায়ী, টুর্নামেন্ট সেরা খেলোয়াড় পাবেন গোল্ডেন বল, সর্বোচ্চ গোলদাতা পাবেন গোল্ডেন বুট আর সেসরা গোলরক্ষক গোল্ডেন গ্লাভস।

যথারীতি তিন ক্যাটাগরিতে এবারও দেয়া হবে এ পুরস্কার। দেখে নেওয়া যাক কারা পেতে পারে এ পুরস্কার।

গোল্ডেন বল:

সোনার বলটা যেন সব তারকার কাছেই সবচেয়ে দামি বস্তু। গতবার এই বলটি নিজের করে নিয়েছিল আর্জেন্টিনার লিওনেল মেসি। বিশ্বসেরা এই তারকা এবার নেই বল জেতার দৌড়েই। এবার গোল্ডেন বল জেতার দৌড়ে এগিয়ে আছেন তিনজন। ক্রোয়েশিয়ার মিডফিল্ডার লুকা মদ্রিচ ও ফ্রান্সের স্ট্রাইকার কিলিয়ান এমবাপ্পে ও আতোয়ান গ্রিজম্যান। এছাড়া, বেলজিয়ামের রোমেলু লুকাকু ও ব্রাজিলের ফিলিপ কুতিনহোর নাম শোনা গেলেও বল পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।

এবারের বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেছে মদ্রিচের ক্রোয়েশিয়া আর এমবাপ্পে-গ্রিজম্যানের ফ্রান্স। মদ্রিচ এবার মোট ছয়টি ম্যাচ। এর মধ্যে একটিতে নেমেছিলেন বদলি হিসেবে। মদ্রিচ ছয় ম্যাচে গোল করেছেন দুইটি। মোট তিন ম্যাচে তিনি নির্বাচিত হয়েছেন ম্যাচ সেরা। অপরদিকে, এমবাপ্পে ম্যাচ খেলেছেন ছয়টি। তার গোল তিনটি আর গোলে অবদান একটি। ম্যাচসেরা হয়েছেন দুইবার। গ্রিজম্যান গোল করেছেন দুইটি আর গোলে অবদান দুইটি। তিনি ম্যাচসেরা হয়েছেন একবার।

আপাতত দৃষ্টিতে এমবাপ্পের চেয়ে এগিয়ে আছেন মদ্রিচ। তবে তার সাথে জোড় টক্কর হবে গ্রিজম্যানের। কারণ এই তারকার পাসিং অ্যাকুরেসি এমবাপ্পের চেয়ে ঢের বেশি। ছয় ম্যাচে মোট ৩৯৭টি পাস দিয়েছেন মদ্রিচ। এরমধ্যে ৩৬৮টিই সফল। ৬ ম্যাচে ৬০৪ মিনিট খেলেছেন। ৬৩ কিলোমিটার দৌড়েছেন।অন্যদিকে, এমবাপ্পে পাস দিয়েছেন মাত্র ২২৩টি। সফল হয়েছে ১৯২টি।  ৬ ম্যাচে ৪৪৪ মিনিট খেলেছেন। ৬ ম্যাচে তিনি ৪৮০ মিনিট খেলেছেন গ্রিজম্যান। ৫৪.৯ কিলোমিটার দৌড়েছেন। তার মধ্যে বল পায়ে দৌড়েছেন ২১.৯ কিলোমিটার। পাস দিয়েছেন ২১৫টি। অ্যাটেম্পট নিয়েছেন ১৯টি।

তবে এই তিন তারকাই নামছেন ফাইনাল খেলতে। ওই ম্যাচই নির্ধারণ করে দেবে তাদের সোনার বলের ভাগ্য।

গোল্ডেন বুট:

বুটটা খুব সম্ভবত এবার নিয়ে যাচ্ছেন ইংল্যান্ডের হ্যারি কেইনই। এই তারকা ইতোমধ্যেই করে ফেলেছেন ৬ গোল। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বেরজিয়ামের রোমেলু লুকাকুর গোল চারটি। এখন শুধু তাদেরই ম্যাচ আছে। আজ যদি লুকাকু তিন গোল করতে পারে তাহলে বুট তার। সে ক্ষেত্রে কেইনকে গোলবঞ্চিত রাখতে হবে। সে সম্ভাবনা খুব একটা নেই বললেই চলে।

গোল্ডেন গ্লাভস:

শুরুর দিকে গোল্ডেন গ্লাভসের সবচেয়ে বড় দাবিদার ছিলেন মেক্সিকোর ওচোয়া। এই প্রহরী ৪ ম্যাচে করেছেন ২৬টি সেভ। তবে তিনি বাদ পড়ে যাওয়ায় এখন সবচেয়ে আলোচিত নাম হচ্ছে ড্যানিয়েল সুভাসিস। ক্রোয়েশিয়ার এই গোলরক্ষক মোট পেনাল্টি ঠেকিয়েছেন চারটি। এই গোলরক্ষকের মোট সেভ ১৪টি।

এই তালিকায় আছে বেলজিয়ামের গোলরক্ষক থিবো কর্তোয়া। এই তারকা শুধু ব্রাজিল ম্যাচেই বল ঠেকিয়েছেন ৮টি। তার মোট সেভ ১৬টি। গোল খেয়েছেন ৭টি। তবে তিনি কোনো ভুল করেননি। ফ্রান্সের গোলরক্ষক হুগো লরিসও আছেন সোনার সোনার গ্লাভসের দৌড়ে। তবে এই তারকা তেমন কোনো পরীক্ষাতেই পরেননি। পাঁচ ম্যাচে মোট ৯টি সেভ করেছেন তিনি। খেয়েছেন ৬ গোল।

ad