পাকিস্তানের জালে বাঘিনীদের গোল উৎসব

Jagoran- Pakistan, net, tigresses, goal celebrations,
ad

স্পোর্টস ডেস্ক: সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী ফুটবল টুর্নামেন্টে পাকিস্তানকে ১৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে দুর্দান্ত শুরু বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ।

বৃহস্পতিবার (৯ আগস্ট) বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যায় ভুটানের রাজধানী থিম্পুর চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচের ৫ মিনিটের মাথায় লাল-সবুজদের এগিয়ে দেয় তহুরা খাতুনের গোল।

১৭ মিনিটে স্কোর লাইন দাঁড়ায় ২-০। মনিকা চাকমা ফ্রি কিক থেকে লক্ষ্যভেদ করেন।দু’মিনিট পর আঁখির লম্বা পাসে তহুরা খাতুন হেডে বল জালে জড়িয়ে করেন ৩-০। ৩১ মিনিটে শামসুন্নাহার ডান দিক থেকে গোলকিপারকে পরাস্ত করে স্কোর ৪-০ করে পাকিস্তানকে আরো চাপে ফেলে দেন।

৩৯তম মিনিটে অধিনায়ক মারিয়া ও পরের মিনিটে ডিফেন্ডার আঁখি দূরপাল্লার জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করলে ৬-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় বাংলাদেশ।

দ্বিতীয়ার্ধে পাকিস্তানি মেয়েদের উপর যেন গোলের স্টিম রোলার চালিয়েছে বাংলাদেশের মেয়েরা। ৪৭ মিনিটে কর্নার কিক থেকে ডিফেন্ডার সাজেদা খাতুনের গোলে ব্যবধান দাঁড়ায় ৭। পরের সাত মিনিটে ফরোয়ার্ড শামসুন্নাহারের হ্যাটট্রিকে ব্যবধান দাঁড়ায় ১০ গোলে।

৫৮ মিনিটে সাজেদার দ্বিতীয় ও আনাই মঘিনির কল্যাণে পাকিস্তানের জালে গোলের ডজন পূর্ণ করে বাংলাদেশ। শেষদিকে অনেকটা ঢিলেঢালা ফুটবল খেলেও আরো দুইবার পাকিস্তানের জালে জড়ায় বাংলাদেশ। ৮৮ মিনিটে আনাই মোঘিনির দ্বিতীয় ও ৯০ মিনিটে শামসুন্নাহারের চতুর্থ গোলে ১৪-০ ব্যবধানে নিজেদের সাফ আসর শুরু করলো লাল-সবুজের বাঘিনীরা।

বাংলাদেশের পক্ষে শামসুন্নাহার জুনিয়র হ্যাটট্রিকসহ ৪ গোল করেছেন। তহুরা, সাজেদা, আনাই করেছেন ২টি করে গোল। আর একটি করে গোল করেছেন মনিকা, শামসুন্নাহার, মারিয়া ও আখি।

তবে শুধুমাত্র গোলের পরিমাণ দিয়ে বাংলাদেশের পারফর্মেন্স বিচার সম্পূর্ণভাবে করা যাবে না। সেটা বোঝানোর জন্য আরও কিছু বিস্ময়কর তথ্য জেনে নেয়া ভালো, যা দেখলে পরিষ্কার বোঝা যাবে বাংলাদেশ কতটা একপেশেভাবে দাপট দেখিয়ে পাকিস্তানকে বিধ্বস্ত করে দিয়েছে।

গোটা ম্যাচে বাঘিনীরা অন টার্গেট শট নিয়েছে ৩৭টি, যেখানে পাকিস্তান একবারও নিতে পারেনি! অফ টার্গেট শট বাংলাদেশ নিয়েছে ২১টি আর পাকিস্তানের সংখ্যাটি এখানেও শূন্য। বাংলাদেশ কর্নার আদায় করে নিয়েছে ১২টি, পাকিস্তান একটিও নয়।

পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে বাংলাদেশ অধিনায়ক মারিয়া মাণ্ডা বলেছিলেন, আমরা এখানে শিরোপার জন্য এসেছি। দেশে আমার কোচের অধীনে অনেক কঠোর পরিশ্রম করেছি। পাকিস্তানের বিপক্ষে জেতার আত্মবিশ্বাস আমাদের আছে। প্রতিযোগিতার বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বলে আমাদের ওপর কোনো চাপ নেই। সবাই ফিট ও মানসিক ও শারীরিকভাবে শক্তিশালী আছে। একটা দলের খেলে জেতার জন্য প্রস্তুত আছে।

ad