বাংলাদেশের রাজকীয় সিরিজ জয়

Jagoran
ad

স্পোর্টস ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় তিন ম্যাচ সিরিজের শেষ ম্যাচে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজকে বৃষ্টি আইনে ১৯ রানে হারিয়ে ২-১ ব্যবধানে টি-২০ সিরিজ জয় করল বাংলাদেশ।

সোমবার (৬ আগস্ট) বাংলাদেশ সময় সকাল ৬টায় ফোর্ট লডারডেল মাঠে অনুষ্ঠিত ম্যাচে টসে জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশ ৫ উইকেটে ১৮৪ রান করে। জবাবে ১৭ ওভার ১ বলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৭ উইকেটে ১৩৫ রান করার পর বৃষ্টির কারণে আর খেলা না হওয়ায় বাংলাদেশ বৃষ্টি আইনে জিতে যায়।

বাংলাদেশের ইনিংসের শুরুতে লিটন আর তামিম রীতিমতো তাণ্ডব শুরু করেন। মাত্র ৩ ওভার ৪ বলেই বাংলাদেশ দলীয় ৫০ রানের গণ্ডি পার হয়।

দলীয় ৬১ রানে তামিম ১৩ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ২১ রান করে মাঠ কাঁপিয়ে ব্র্যাথওয়েটের বলে উইলিয়ামসের হাতে ধরা পড়েন। খানিক পরেই ৪ বলে ৫ রান করে কেমো পলের স্লোয়ার ডেলিভারিতে লং অনে ক্যাচ দিয়ে নিজের অফ ফর্ম ধরে রাখেন সৌম্য।

পাওয়ার প্লেতে ৭১ রান তোলে বাংলাদেশ, যার পুরো কৃতিত্বই লিটনের। ২৪ বলে তিনি তুলে নেন টি-২০ ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি। দশম ওভারের শেষ বলে ১৪ বলে ১২ রান করে ব্র্যাথওয়েটের বলে রামদিনের গ্লাভসে ধরা পড়েন মুশফিক।

১১তম ওভারে দলীয় ১০২ রানের মাথায় ৩২ বলে ৬ চার ও ৩ ছক্কায় ৬১ রানের টর্নেডো ইনিংস খেলা লিটন কেসরিক উইলিয়ামসের স্লোয়ার বল ঠিকভাবে সামলাতে পারেননি। বল তার ব্যাটের টপ এজ হয়ে উঠে গেলে নার্স সহজ ক্যাচ লুফে নেন।

এরপর চতুর্থ উইকেটে দলের হাল ধরেন সাকিব এবং রিয়াদ। এই জুটি ৪৪ রান যোগ করার পর সাকিব ২২ বলে ২ চারের মারে ২৪ রান করে পলের স্লোয়ার বলে ডিপ মিড উইকেটে নার্সের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। তার একটু পরেই বৃষ্টির কারণে খেলা বন্ধ হয়ে যায়। টাইগারদের স্কোর তখন ১৬ ওভার ৩ ওভারে ৫ উইকেটে ১৪৯।

বৃষ্টির পরে আবারও খেলা শুরু হলে ইনিংসের শেষ ২১ বলে ৩৫ রান যোগ করে ১৮৪ রান করে টাইগাররা। পঞ্চম উইকেটে রিয়াদ এবং আরিফুলের ৩৮ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি দলকে বড় স্কোর এনে দেয়। রিয়াদ ২০ বলে ৪ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কার মারে ৩২ রান এবং আরিফুল ১৬ বলে ১ চারের মারে ১৬ রান করে অপরাজিত ছিলেন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে ব্র্যাথওয়েট ও পল ২টি এবং উইলিয়ামস একটি উইকেট নেন।

জবাবে ক্যারিবীয়রা তাদের ইনিংসের চতুর্থ ওভারে মুস্তাফিজের করা চতুর্থ ওভারের পঞ্চম বল ফ্লেচার অফ সাইডে বল উড়িয়ে মারতে গেলে ডিপ পয়েন্টে অপুর হাতে ধরা পড়লে তিনি ৭ বলে ৬ রান করে বিদায় নেন।

পরের ওভারে বোলিং করার সময় অপু ইনজুরিতে পড়ে মাঠ ছাড়লে ওভারের বাকি ৩ বল করার জন্য আসেন সৌম্য। আর তাতেই সৌম্য বাজিমাত করে তুলে নেন ১৯ রান করা ওয়ালটনকে। দ্বাদশ খেলোয়াড় সাব্বিরের হাতে তিনি ধরা পড়েন লং অনে।

পরের ওভারে আক্রমণে এসে স্যামুয়েলসকে স্পিন ভেল্কি দেখিয়ে বোল্ড করে উল্লাসে মাতে টাইগাররা। বলটি লেগ স্টাম্পের ওপর পড়ার পর স্কিড করে মিডল স্ট্যাম্প উপড়ে ফেলে। তাতে ২ রানেই স্যামুয়েলসকে ফিরতে হয়।

দ্বাদশ ওভারের তৃতীয় বলে রুবেল ১৮ বলে ২১ রান করা রামদিনকে বোল্ড ফিরিয়ে দিয়েছেন। তাতে চতুর্থ উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ১৩তম ওভারের প্রথম বলে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে রনির হাতে পাওয়েল পঞ্চম ব্যাটসম্যান ২৩ রান করে মুস্তাফিজের বলে বিদায় নেন। আর রনির করা ১৭তম ওভারে লং অনে সাব্বিরের হাতে ধরা পড়েন ব্র্যাথওয়েট।

২০ বলে ৪৭ রানের টর্নেডো ইনিংস খেলে টাইগারদের গলার কাটা হয়ে যাওয়া আন্দ্রে রাসেলকে ফিরিয়েছেন মুস্তাফিজ। তাতে নিশ্চিত জয়ের কাছাকাছি চলে যায় বাংলাদেশ। ১৮তম ওভারের প্রথম বলে মুস্তাফিজের স্লোয়ার সোজা ব্যাটে চালিয়ে দেন রাসেল। লগ অফে বাউন্ডারির একদম কাছে দাঁড়িয়ে থাকা আরিফুলের দারুণ ক্যাচে ইতি ঘটে রাসেলের ইনিংসের। রাসেলের আউটের পরেই নামে বৃষ্টি আর বিজয়ী হয় বাংলাদেশ।

টাইগারদের পক্ষে মুস্তাফিজ ৩টি এবং রনি, রুবেল, সৌম্য ও সাকিব নেন একটি করে উইকেট।

ad