বার্সেলোনার কাছে বিধ্বস্ত আত্মঘাতী রোমা

Barcelona, near, crashed, Roma,
ad

স্পোর্টস ডেস্ক: চ্যাম্পিয়নস লীগের কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে বার্সেলোনার কাছে ৪-১ গোলে বিধ্বস্ত হলো এএস রোমা। দুটি গোল করে দিয়েছে রোমার খেলোয়াড়রাই! ফলে দুই আত্মঘাতী গোলে সহজ জয় পাওয়া কাতালানরা সেমিফাইনালে এক পা দিয়ে রাখল।

বুধবার (৪ এপ্রিল) ন্যু ক্যাম্পে অনুষ্ঠিত ম্যাচে দারুণ খেললেন লিওনেল মেসিরা। তবে জয়ে বড় ভূমিকা রাখলেন অতিথিরাই। দুটি গোলই এসেছে আত্মঘাতী থেকে। আর একটি করে গোল করেছেন লুইস সুয়ারেজ ও জেরার্ড পিকে।

৩৮ মিনিটে অতিথিদের আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে যায় বার্সা। ইনিয়েস্তা বল বাড়াতে চেয়েছিলেন মেসিকে। ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের জালেই বল জড়ান ড্যানিয়েল ডি রসি। এই এক গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় বার্সেলোনা।

৫৬ মিনিটে আরেকটি আত্মঘাতী গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ হয়। রাকিটিচের ক্রসে পা ছোঁয়াতে পারেননি সামুয়েল উমতিতি। কোস্তাস মানোলাসের স্লাইডে পোস্টে লেগে ফিরে আসে বল। এবারও পা ছোঁয়াতে পারেননি উমতিতি। তবে মানোলাসের পায়ে লেগে বল গোললাইন অতিক্রম করে।

৫৯ মিনিটে লুইস সুয়ারেজের শট অতিথি গোলরক্ষক ফিরিয়ে দিলেও বিপদমুক্ত করতে পারেননি। সেই সুযোগে ডি-বক্সে ওঁত পেতে থাকা পিকে জালে বল জড়ালে কাতালান ক্লাবটির ব্যবধান দাঁড়ায় ৩-০ তে।

৮০ মিনিটে পেরোত্তির ক্রস থেকে জেকো গোল করলে একটি অ্যাওয়ে গোল পায় রোমা। খেলা শেষ হওয়ার তিন মিনিট আগে সুয়ারেজ গোল করলে ৪-১ গোলের বড় জয় পায় বার্সা।

ম্যাচ শেষে বার্সা কোচ বলেছেন, এই মৌসুমে সব ধরণের গোল হয়েছে। যে গোলের আপনি বেশি দাবিদার সেটাও হয়েছে, আবার যেটার দাবিদার নয় সেটাও হয়েছে। আমরা এই গোলগুলোর দাবিদার ছিলাম। গোলগুলো আত্মঘাতী ছিল, এটায় কিছু যায় আসে না। আপনি যদি গোলের কাছাকাছি যেতে না পারেন তাহলেই আত্মঘাতী গোল হয়। যদি প্রতিপক্ষ আত্মঘাতী গোল করে, তাহলে আমাদের কি করার আছে?

সেমিফাইনাল নিশ্চিত হয়ে গেছে মানতে নারাজ বার্সা কোচ। তার মতে, আমি জানি না লোকে এনিয়ে (রোমার ম্যাচ) কী ভাবছে, কিছুই শেষ হয়নি। ৩-০ কিংবা ৪-১ এ জয়ে কিছুই হয়নি।

ট্রেবলের স্বপ্ন দেখছেন কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমার এই ধরণের কোনও অনুভূতি নেই। প্রত্যেক ম্যাচ ধরে ধরে আমি জিততে চাই এবং আজ সেটা হলো। শনিবার লেহানেসের বিপক্ষে আমাদের ম্যাচ, তার পরের চিন্তা আমি করছি না।

ad