বিশ্বকাপের বিতর্কিত ঘটনাগুলো (ভিডিওসহ)

hand of god
ad

স্পোর্টস ডেস্ক: বিশ্বকাপ মানেই ইতিহাসের ভাণ্ডার। সেখানে ভালো ইতিহাসও আছে আবার খারাপ ইতিহাসও আছে। আর কয়েকদিন পরেই রাশিয়া বিশ্বকাপ শুরু। বিশ্বকাপের আগে দেখে নেওয়া যাক কিছু বিতর্কিত ঘটনা।

হ্যান্ড অফ গড: বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বিতর্কিত বিষয় এটি। ১৯৮৬ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালের লড়াইয়ে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে হাত দিয়ে বল জালে জড়িয়েছিলেন ডিয়াগো ম্যারাডোনা। তিনি কাজটি এতটাই নিখুঁতভাবে করেছেন যে রেফারি গোলের সিদ্ধান্ত দিয়ে দেন। আর এতেই বিশ্বকাপ থেকে বাদ হয়ে যায় ইংল্যান্ড। পরবর্তীতে ম্যারাডোনা এরে না দিয়েছিলেন ‘হ্যান্ড অফ গড’।

জিদানের ঢুঁস কাণ্ড: চলছিল ২০০৬ বিশ্বকাপের ফাইনাল। ফ্রান্স বনাম ইতালির সেই ফাইনালের অতিরিক্ত সময়ে কোনো একটি বিষয় নিয়ে তর্কে জড়ান জিনেদিন জিদান ও ইতালির মাতেরাজ্জি। শেষে মেজাজ হারিয়ে মাতেরাজ্জিকে মাথা দিয়ে ঢুঁস মারেন জিদান। সঙ্গে সঙ্গে রেফারির লাল কার্ডে মাঠের বাইরে চলে যেতে হয়েছিল জিদানকে আর মাতোরাজ্জিকে যেতে হয় হাসপাতালে। পরে অবশ্য ঢুঁস মারার কারণ জানা যায়। জিদানের দাবি মাতোরাজ্জি তাকে বাজে একটি গালি দিয়েছিলেন।

সুয়ারেজের কামড়: কামড়ের জন্য লুই সুয়ারেজের নামডাক আছে বেশ। কয়েকবারই সে প্রতিপক্ষ দলের খেলোয়াড়দের কামড় দিয়ে আলোচনায় আসেন। ২০১৪ বিশ্বকাপেও তিনি এ ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটান। ইতালির চিয়েল্লিনির ঘাড়ে কামড় দিয়েছিলেন তিনি। এ জন্য তাকে চার মাস নিষিদ্ধ করা হয়।

রিভালদোর অভিনয়: ফুটবল খেলার পাশাপাশি অভিনয় জানাটাও অনেক জরুরি। এর প্রমাণ দিয়েছেন রিভালদো। কর্নার নিতে যাওয়ার আগে তুর্কি ফুটবলার হাকান আনসাল বল ছুঁড়ে দেন রিভালদোর দিকে। যা তাঁর হাঁটুতে এসে লাগে। কিন্তু মুখ ধরে মাটিতে বসে পড়ে কাতরাতে থাকেন তিনি। পরে বিভ্রান্ত হয়ে রেফারি আনসালকে লাল কার্ড দেখান। তবে পরবর্তীকালে এ কীর্তি সামনে আসে এবং তার মোটা অঙ্কের জরিমানা হয়।

মারামারির এক ম্যাচ: চলছিল ২০০৬ বিশ্বকাপের শেষ ষোলোর ম্যাচ। ওইদিন মুখোমুখি হয়েছিল পর্তুগাল ও নেদারল্যান্ডস। ম্যাচটি ১-০ গোলে পর্তুগাল জিতেছিল। তবে তা ইতিহাসে অমর হয়ে আছে অন্য কারণে। এই ম্যাচে মোট ১৬ বার হলুদ কার্ড ও চারবার লাল কার্ড দেখাতে হয়েছিল রেফারিকে। নেদারল্যান্ডসের দুইজন ও পর্তুগালের দুইজন করে লালকার্ড দেখেন।

ad