শেষবারের মতো বিশ্বকাপ খেলছেন যে তারকারা

messi ronaldo
ad

স্পোর্টস ডেস্ক: আর দেড় ঘন্টা পরই রাশিয়ায় শুরু হবে বিশ্বকাপের ২১তম আসর। এরপর আবার চার বছর পর হবে ফুটবলের এই মহাযজ্ঞ। সবাই মুখিয়ে আছেন এ প্রতিযোগিতা উপভোগের জন্য ও এবার কার হাতে শিরোপা উঠে তা দেখার জন্য। ফুটবলাররা মুখিয়ে আছেন স্বপ্নের ট্রফিটি ছুঁয়ে দেখার জন্য। তবে অনেক তারকা ফুটবলারই স্বপ্নের ট্রফিটি ছুঁয়ে দেখার শেষ সুযোগ পাচ্ছেন এবার।

এবারই শেষ হতে যাচ্ছে অনেক ফুটবলারের বিশ্বকাপ ক্যারিয়ার। আগামী বিশ্বকাপে আর মাঠ মাতাতে দেখা যাবে না অনেককেই।তাহলে দেখে নেওয়া যাক এমন ১৮ ফুটবলারকে যারা এবার শেষবারের মতো বিশ্বকাপে অংশ নিচ্ছেন।

লিওনেল মেসি: ক্লাবের হয়ে এমন কোনো শিরোপা নাই জা জিতেননি মেসি। পাঁচবার ব্যালন ডি’অর জয়ের পাশাপাশি গত বিশ্বকাপে জিতেছিলেন গোল্ডেন বল। তবে তার দুঃখ একটাই এখনো জেতা হয়নি বিশ্বকাপ শিরোপা। গতবার শিরোপার খুব কাছে চলে গিয়েও ফাইনালে হেরে বিশ্বকাপ ছুঁয়ে দেখার স্বপ্ন হাতছাড়া হয় তার।

১৯৮৭ সালে জন্ম নেওয়া মেসির বয়স এখন ৩০। কাতার বিশ্বকাপ আসতে আসতে তার বয়স হবে ৩৪। এর মানে ওই বিশ্বকাপে খেলা তার জন্য কিছুটা দুরূহ হয়ে যাবে। মেসি নিজেও জানিয়েছেন যে এটিই হতে যাচ্ছে তার শেষ বিশ্বকাপ।

ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো: পর্তুগালের এই তারকা ক্লাবের হয়ে এমন কোনো শিরোপা নেই যা জেতেননি। পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী এই তারকা সর্বশেষ ইউরোতে পর্তুগালকে জিতিয়েছেন ইউরো। তবে তার দুঃখ তিনি বিশ্বকাপ জিততে পারেননি। এমনকি এবারই বিশ্বকাপ জেতার শেষ সুযোগটি পাচ্ছেন তিনি।

রোনালদোর বয়স এখন ৩৩। এর মানে কাতার বিশ্বকাপ আসতে আসতে তার বয়স হবে ৩৭। সুতরাই কাতার বিশ্বকাপে তাকে দেখাটা অসম্ভবই। তাই এবারই শেষ বিশ্বকাপ হতে যাচ্ছে এই তারকার।

লুইস সুয়ারেজ: দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপে তার দল উরুগুয়ে গিয়েছিল সেমি-ফাইনালে। তবে নিষেধাজ্ঞা থাকায় তিনি খেলতে পারেননি সে ম্যাচ। যার ফলাফল সেমি-ফাইনাল থেকেই বিদায়। এরপর জার্মানি বিশ্বকাপে খুব একটা ভালো করতে পারেনি উরুগুয়ে।

আর এতে করে বিশ্বকাপ ট্রফি জেতার সুযোগ হয়নি তার। এই তারকার বয়স এখন ৩১ বছর। এর মানে রাশিয়া বিশ্বকাপই হতে যাচ্ছে তার শেষ বিশ্বকাপ। এখন দেখার বিষয় অধরা শিরোপা তার হাতে ধরা দেয় কিনা।

মারিও গোমেজ: জার্মানির এই স্ট্রাইকার ভাগ্যবান বটে। নিয়মিত দলে জায়গা না পেলেও বিশ্বকাপ ছুঁয়ে দেখতে পেরেছেন তিনি। এখন তিনি অপেক্ষায় দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ জেতার। ক্যারিয়ারে দুইবার বিশ্বকাপ ছুঁয়ে দেখার ভাগ্যবানদের তালিকায় নাম উঠানোর এবারই তার শেষ সুযোগ।

কেন না এই স্ট্রাইকারের বয়স যে ৩২। কাতার বিশ্বকাপের সময় তার বয়স হবে সাড়ে ৩৬। তাই ওই বিশ্বকাপ তার জন্য অসম্ভব।

গঞ্জালো হিগুয়েইন: আর্জেন্টিনার এই তারকার গতবারই সুযোগ হয়েছিল বিশ্বকাপ জেতার। তবে জার্মানির কাছে ফাইনালে হেরে তা ভঙ্গ হয়ে যায়। এখন রাশিয়া বিশ্বকাপই তার একমাত্র সুযোগ। ৩১ বছর বয়সী হিগুয়েইন অবশ্য এ সুযোগটা মিস করতে চাইবেন না। নিজের সর্বোচ্চটা দিয়েই চাইবেন ট্রফির স্বাদটা পেতে। তবে বিধাতা কি লিখে রেখেছেন ভাগ্যে তা তিনি নিজেই জানেন।

জেমি ভার্ডি: ইংল্যান্ডের এই খেলোয়াড়ের এবারই বিশ্বকাপ জেতার প্রথম ও শেষ সুযোগ। কেন না তিনি এর আগে কোনো বিশ্বকাপের স্কোয়াডে ছিলেন না। গত দুই মৌসুমে লিস্টার সিটির হয়ে দারুণ পারফর্ম করায় সবার নজরে আসেন ৩১ বছর বয়সী এই স্ট্রাইকার। এখন দেখার বিষয় নিজের প্রথম ও শেষ সুযোগটি তিনি কাজে লাগাতে পারেন কিনা। কেন না কাতার বিশ্বকাপের আগে তার বয়স হয়ে যাবে ৩৫।

আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা: তাকে বলা হয় সর্বকালের অন্যতম সেরা মিডফিল্ডার। দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপে তার গোলেই শিরোপা জিতেছিল স্পেন। তবে এবারই হতে যাচ্ছে এ তারকার শেষ বিশ্বকাপ। ১৯৯৪ সালে জন্ম নেয়া এ তারকার বয়স এখন ৩৩। কাতার বিশ্বকাপের আগে তার বয়স হবে ৩৭।

এর মানে ওই বিশ্বকাপে খেলা তার জন্য অসম্ভব। সুতরাং এটাই হতে যাচ্ছে তার শেষ বিশ্বকাপ। এমনকি বিশ্বকাপ শেষেই এ তারকা দিতে পারেন ফুটবল থেকে অবসরের ঘোষণা।

থিয়াগো সিলভা: গতবার নিজেদের মাঠেই বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছিলেন সিলভা। ব্রাজিলও ছিল হট ফেবারিট। তবে সেমি-ফাইনালে জার্মানির কাছে ৭-১ গোলে হেরে শিরোপা জয়ের স্বপ্ন ভঙ্গ হয় সিলভার নেতৃত্বে থাকা দলটির। এবারও রাশিয়া বিশ্বকাপে হট ফেবারিট হিসেবে যাবে তার দল।

সিলভার কাছেও সুযোগ থাকছে বিশ্বকাপ জয়ের। তবে এটাই তার শেষ সুযোগ। কেন না এই ডিফেন্ডারের বয়স যে এখন ৩৩। তাই কাতার বিশ্বকাপে অংশ নেয়া তার জন্য অসম্ভব ব্যাপার।

অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া: আর্জেন্টিনার সর্বকালের অন্যতম সেরা মিডফিল্ডার ডি মারিয়া। গতবার তার নৈপুণ্যেই সেমি-ফাইনালে ওঠে আর্জেন্টিনা। তবে ইনজুরি থাকায় সেমি-ফাইনালে ও ফাইনালে খেলতে পারেননি এই তারকা। দলের সেরা মিডফিল্ডারকে ছাড়া খেলতে নেমে ফাইনালে জার্মানির কাছে হেরে যায় তারা।

ডি মারিয়াও সুযোগ হারান বিশ্বকাপ ছুঁয়ে দেখার। তবে এবার সে সুযোগটি আবার তার কাছে আসছে। ৩০ বছর বয়সী মারিয়ার এবারই শেষ সুযোগ বিশ্বকাপ জেতার। এখন দেখার বিষয় তার ভাগ্যে কি আছে।

এডিনসন কাভানি: উরুগুয়ের হয়ে দুইটি বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছেন কাভানি। কিন্তু বিধি বাম শিরোপাটা ছুঁয়ে দেখার সৌভাগ্য হয়নি তার। এবারের রাশিয়া বিশ্বকাপেও অংশ নিচ্ছে উরুগুয়ে। এই দলেরই অন্যতম সদস্য কাভানি। তার বয়স এখন ৩১। মানে এটাই হতে যাচ্ছে তার শেষ বিশ্বকাপ।

এখন দেখার বিষয় সুয়ারেজের সাথে জুটি বেধে তিনি উরুগুয়েকে শিরোপা এনে দিতে পারেন কিনা। তবে সেটা আপাতত একটু কঠিনই। কিন্তু ফুটবল বলে কথা। কি হয় বলা যায় না।

পেদ্রো রদ্রিগেজ: দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপ জয়ী স্পেন দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন পেদ্রো। খেলেছেন ব্রাজিল বিশ্বকাপে। তবে সেবার তার দল বিদায় নেয় প্রথম রাউন্ড থেকেই। এবার রাশিয়া বিশ্বকাপেও আক্রমণ শানাতে দেখা যাবে এই মিডফিল্ডারকে।

তবে এবারই শেষবারের মতো বিশ্বকাপে দেখা যাবে এই তারকাকে। কেন না তার বয়স এখন ৩০। এর মানে কাতার বিশ্বকাপের আগে তার বয়স হয়ে যাবে প্রায় ৩৪। সুতরাই এটিই হতে যাচ্ছে তার শেষ বিশ্বকাপ।

সার্জিও অ্যাগুয়েরো: ব্রাজিল বিশ্বকাপে শিরোপার খুব কাছে চলে গিয়েছিল আর্জেন্টিনা। তবে ফাইনালে অতিরিক্ত সময়ের গোলে জার্মানির কাছে হেরে শিরোপা হাতছাড়া হয় তাদের। ওই দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন অ্যাগুয়েরো। একটুর জন্য শিরোপা ছুঁয়ে দেখার সৌভাগ্য না হওয়া অ্যাগুয়েরো এবার আবার পাচ্ছেন সে সুযোগ।

তবে এটাই হয়তো তার শেষ সুযোগ। কারণ ১৯৮৮ সালে জন্ম নেওয়া অ্যাগুয়েরোর বয়সটা যে এখন ২৯। তাই এটাই হয়তো হতে যাচ্ছে তার শিরোপা জেতার শেষ সুযোগ।

অলিভার জিরুড: ব্রাজিল বিশ্বকাপে বেশ ভালো একটি দল নিয়ে গিয়েও তেমন সুবিধা করতে পারেনি ফ্রান্স। জার্মানির কাছে হেরে কোয়র্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নেয়। ওই দলে থাকা জিরুড এবারও খেলবেন রাশিয়া বিশ্বকাপে। তবে এটিই হতে যাচ্ছে তার বিশ্বকাপ জেতার শেষ সুযোগ।

১৯৮৬ সালে জন্ম নেয়া জিরুডের বয়স এখন ৩১। এর মানে কাতার বিশ্বকাপের আগে তার বয়স হবে ৩৫। সুতরাই ওই বিশ্বকাপে খেলা তার জন্য অসম্ভব।

রাদামেল ফ্যালকাও: ১৯৮৬ সালে জন্ম নেয়া রাদামেল ফ্যালকাও কলম্বিয়ার হয়ে মোট দুইটি বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছেন। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে খেলবেন রাশিয়া বিশ্বকাপেও। তবে এটিই হবে তার শেষ বিশ্বকাপ। কারণ তার বয়সটা যে এখন ৩২। তাই কাতার বিশ্বাকাপে তার আর খেলার কোনো সম্ভাবনা নেই।

উল্লেখ্য, এটি ধারাবাহিক প্রতিবেদনের তৃতীয় পর্ব। এর আগের দুই পর্বে এবারই শেষ বিশ্বকাপ হতে যাওয়া ১০ জনকে নিয়ে আলোচনা করা হয়েছিল। তারা হলেন- ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, লুইস সুয়ারেজ, মারিও গোমেজ, গঞ্জালো হিগুয়েইন, জেমি ভার্ডি, অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া, আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা, ওয়েইন রুনি, এডিনসন কাভানি ও থিয়াগো সিলভা।

জেরার্ড পিকে: স্পেনের জাতীয় দলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য পিকে। জার্মানি বিশ্বকাপেই এই তারকা পেয়েছেন বিশ্বকাপ জেতার স্বাদ। পরেরবার তার দল বাদ হয়ে যায় প্রথম রাউন্ড থেকেই। এখন সামনে আসছে রাশিয়া বিশ্বকাপ। আর ক্যারিয়ারে দ্বিতীয় বার বিশ্বকাপ জেতার সুযোগ।

পিকের বয়স এখন ৩১। কাতার বিশ্বকাপের আগে তার বয়স হবে ৩৫। তাই ওই বিশ্বকাপ খেলার সম্ভাবনা তার আর নেই।

মেসুত ওজিল: জার্মানির সর্বকালের অন্যতম সেরা মিডফিল্ডারদের একজন মেসুত ওজিল। গতবার বিশ্বকাপ জয়ে তার অবদান ছিল অসামান্য। ব্রাজিল বিশ্বকাপে দলের হয়ে দুইটি গোলের পাশাপাশি চারটি গোলে অবদান ছিল তার। রাশিয়া বিশ্বকাপেও মিডফিল্ডের প্রধান অস্ত্র তিনি। তবে মোট দুই বিশ্বকাপে অংশ নেয়া ওজিলের এটিই হতে যাচ্ছে শেষ বিশ্বকাপ।

১৯৮৭ সালে জন্ম নেওয়া ওজিলের বয়স এখন ২৯। রাশিয়া বিশ্বকাপ শেষ হতে হতে তার বয়স হবে ৩০। আর কাতার বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার আগে হবে ৩৪। এর মানে এটাই হতে যাচ্ছে তার শেষ বিশ্বকাপ।

হাভিয়ের মাসচেরানো: ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার মাসচেরানোর অবদান কখনোই ভুলতে পারবে না আর্জেন্টিনা। এর কারণটা হলো গত বিশ্বকাপ। আর্জেন্টিার রক্ষণটা অত্যন্ত নড়েবড়ে তা সবারই জানা। তবে গত বিশ্বকাপে এই আর্জেন্টিনাই সবচেয়ে কম গোল খেয়েছে। এই সফলতার অন্যতম কারণ মাসচেরানো।

তবে এবারই তাকে শেষবারের মতো বিশ্বকাপে দেখা যাবে। কারণ তার বয়সটা যে এখন ৩৩। আগামী বিশ্বকাপ আসতে আসতে তা হয়ে যাবে ৩৭।

টিম ক্যাহিল: অস্ট্রেলিয়াকে বিশ্বকাপে উঠানোর জন্য সবচেয়ে বড় ভূমিকাটা থাকে টিম ক্যাহিলের। নিজের দল অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপে খুব একটা ভালো করতে না পারলেও ক্যাহিলের পারফরমেন্স থাকে অসাধারণ। তবে এবারই শেষবারের মতো বিশ্বকাপে দেখা যাবে ছোট দলের এই বড় স্টারকে। কেন না তার বয়সটা যে এখন ৩৮। এই বয়সে যে তিনি খেলা চালিয়ে যাচ্ছেন তাই অনেক কিছু।

ad