স্মিথ আবারও নেতৃত্বে ফিরতে পারেন: সিএ পরিচালক

Tears, broke, Smith,
ad

স্পোর্টস ডেস্ক: বল টেম্পারিংয়ে জড়িত থাকার ঘটনায় এক বছরের নিষেধাজ্ঞার ভেতরে থাকা স্টিভ স্মিথ আবারও নেতৃত্বে ফিরতে পারেন বলে জানিয়েছেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) পরিচালক ও অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক মার্ক টেলর।

রবিবার (৬ মে) ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

মার্ক টেলর বলেন, আমি এখনো মনে করি স্টিভেন স্মিথ অস্ট্রেলিয়াকে নেতৃত্ব দিতে পারে। আমার চোখে সে প্রতারক নয়। সে দায়িত্বে অবহেলা করার জন্য দোষী। কিছু একটা ঘটতে দেখেও সে তা থামায়নি। এটাই দায়িত্বে অবহেলা। সে প্রতারক নয়, ভালো মানুষ।

উল্লেখ্য, গত ২৪ মার্চ কেপটাউন টেস্টের তৃতীয় দিনে ফিল্ডিং করার সময় অজি ফিল্ডার ক্যামেরন ব্যানক্রফটকে একটি হলুদ বস্তু দিয়ে বল ঘষতে দেখা যায়। বিষয়টি টিভি ক্যামেরায়ও ধরা পড়ে। সেখানে দেখা যায়, পকেট থেকে ব্যানক্রফট হলুদ একটি বস্তু বের করে তা দিয়ে বল ঘষছেন। পরে তিনি সে বস্তুটি ট্রাউজারের ভেতরে ঢুকিয়ে ফেলেন।

ঘটনাটি কয়েক সেকেন্ডের। কিন্তু ক্যামেরার চোখ এড়ায়নি। এরপর জায়ান্ট স্ক্রিনে বার বার ব্যানক্রফটকে দেখাতে থাকে। ব্যানক্রফট বিষয়টি লক্ষ্য করে পকেট থেকে হলুদ বস্তুটি বের করে ট্রাউজারের গিট খুলে ভেতর দিয়ে ফেলে দেন।

এরপর আম্পায়াররা ব্যানক্রফটকে ডাকেন। বলের অবস্থার কোনো পরিবর্তন করার চেষ্টা করেছেন কিনা জানতে চান। ভয় পেয়ে যাওয়া ব্যানক্রফট তখন অবশ্য অস্বীকার করেন। পকেট থেকে কালো রঙের একটি কাপড় বের করে দেখান যে তিনি এটা দিয়ে বল ঘষেছেন। আর কাপড় দিয়ে বল ঘষলে তো অবস্থার পরিবর্তন হওয়ার কথা নয়। বিষয়টি মেনে নিয়ে বল পরিবর্তন না করেই আম্পায়াররা খেলা চালিয়ে যান।

কিন্তু ধীর গতির ভিডিওতে পুরো ঘটনা দেখে দর্শকদের মধ্যে কেউ কেউ দুয়ো দিতে শুরু করেন। ধারাভাষ্যকাররা বিষয়টি দেখে বিস্মিত হন। তারা অবাক হন আম্পায়াররা কেন বল পরিবর্তন না করেই খেলা চালিয়ে যাচ্ছেন।

বিতর্কের মধ্যেই সংবাদ সম্মেলনে পুরো অপরাধ স্বীকার করে নেন স্মিথ। জানান, টেস্ট জিততে মরিয়া হয়ে এই কাণ্ড ঘটিয়েছে তার দল। ভবিষ্যতে তার নেতৃত্বে এমনটা আর হবে না বলেও আশ্বস্ত করেন স্মিথ। তবে ওই ঘটনার রেশ থাকতে থাকতেই নেতৃত্বই ছেড়ে দিতে হয় এই ব্যাটসম্যানকে। পদ ছাড়তে হয় তার ডেপুটি ওয়ার্নারকেও।

পরে দেশে ফিরে সংবাদ সম্মেলনে ভুল স্বীকার করে নিজের আবেগ সামলাতে না পেরে কান্নায় ভেঙে পড়ে স্মিথ বলেন, আমার বাকি জীবনটায় এ ঘটনার জন্য আমি অনুতপ্ত থাকবো। আমি একেবারে নিঃশেষ হয়ে গেলাম। আমি আশা করি কালক্রমে আমি সম্মান ফিরে পাবো এবং ক্ষমা লাভ করবো।

স্মিথ বলেন, আমি ভীষণভাবে দুঃখিত, আমি ক্রিকেট খেলাটা ভালোবাসি। আমি বাচ্চাদের আনন্দ উপভোগ করি, আমি শুধু অস্ট্রেলিয়ায় এসেছি ভক্তদের এবং জনগণকে ব্যথা দেয়ার কারণে দুঃখিত বলতে চাওয়ার জন্য।

ad