বার্সেলোনা ছাড়ছে যারা, আসছে যারা!

barcelona
ad

স্পোর্টস ডেস্ক: ২০১৭-১৮ মৌসুম শেষ হচ্ছে আগামী সপ্তাহেই। রাশিয়া বিশ্বকাপের পরেই শুরু হবে নতুন মৌসুম। আর ওই মৌসুমের দলবদল শুরু হবে আগামী জুন থেকে। নতুন মৌসুমে ঘর গোছানোর জন্য বার্সা বেশকিছু খেলোয়াড়কে টার্গেট করে রেখেছে।  নতুন খেলোয়াড়দের যেমনি বার্সেলোনা ঘরে তুলবে তেমনি ছেড়ে দিতে হবে দলে থাকা বেশকিছু খেলোয়াড়কেও।

তাহলে দেখে নেওয়া যাক বার্সা কাদের ছাড়ছে আর কাদের দলে টানছে:

বার্সার টার্গেট যারা:

আতোয়ান গ্রিজম্যান: অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের ফরাসি স্ট্রাইকার আতোয়ান গ্রিজম্যান বার্সেলোনায় যোগ দিচ্ছেন গুজবটা অনেক দিনের। সম্প্রতি গ্রিজম্যানও ঘোষণা দেন, অ্যাতলেটিকোতে এটাই হতে যাচ্ছে তার শেষ মৌসুম। এখন শোনা যাচ্ছে বার্সেলোনার সাথে গোপনে চুক্তি হয়েছে এই তারকার। তার জন্য অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদকে ১১৫ মিলিয়ন পাউন্ড দিয়েছে কাতালান ক্লাবটি।

যদিও গ্রিজম্যান বা অ্যাতলেটিকো এ বিষয়ে এখনও কিছুই বলেননি। তবে ধারণা করা হচ্ছে মৌসুম শেষেই আসবে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা।

মোহাম্মদ সালাহ: গ্রীস্মের দলবদলে বার্সার অন্যতম টার্গেট হচ্ছে মোহাম্মদ সালাহ। নেইমার চলে যাওয়ায় যে স্থানটি খালি হয়েছে সে স্থান পূরণ করতে সালাহকে চাচ্ছে বার্সেলোনা। অন্যদিকে, সালাহকে পেলে ইনিয়েস্তার অভাবও কিছুটা পূরণ করতে পারবে দলটি। আর এ জন্য সালাহর সাথে যোগাযোগও শুরু করে দিয়েছে দলটি। আর মাধ্যম হিসেবে কাজ করছেন সালাহ সাবেক সতীর্থ কুতিনহো।

তবে সালাহকে খুব সম্ভবত দলে ভেড়াতে পারছে না বার্সা। কারণ সালাহ নিজেই ঘোষণা দিয়েছেন তিনি লিভারপুল ছাড়ছেন না।তার উপর আবার তার মূল্য ধরা হয়েছে ২০০ মিলিয়ন।

অ্যান্থনি মার্শিয়াল: ম্যানচেষ্টার ইউনাইটেডের মিডফিল্ডার মার্শিয়ালকে দলে ভেড়াতে হঠাৎ করেই আগ্রহ দেখিয়েছে বার্সেলোনা। ডেইল মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ম্যানইউর সাথে এবারই চুক্তি শেষ হচ্ছে মার্শিয়ালের। নতুন করে সে অর চুক্তি করতে চাইছে না।

ফ্রান্সের এই মিডফিল্ডারকে দলে ভেড়াতে বার্সেলোনা ৬০ মিলিয়নের প্রস্তাব দিতে পারে। এ জন্য অবশ্য তাদের চেলসি ও পিএসজির সাথে লড়াই করতে হবে।

মিলিনকোভিচ সেভিক: লাজিও মিডফিল্ডার সার্গেজ মিলিনকোভিচ সেভিককে দলে ভেড়াতে উঠে পড়ে লেগেছে বার্সেলোনা। ২২ বছর বয়সী সেভিক লাজিওর হয়ে মোট ৩২ ম্যাচ খেলেছেন। গোল করেছেন মোট নয়টি। পাশাপাশি গোলে অবদান রেখেছেন ছয়বার। আর এতেই মন মজেছে বার্সার। তাকে দলে ভেড়াতে লাজিওর সাথে শুরু করেছেন আলোচনা।

অবশ্য রিয়াল, পিএসজি, চেলসিসহ মোট পাঁচটি ক্লাবও তাকে দলে চাইছে। আর ক্লাবগুলোর আগ্রহের কারণে সেভিকের দাম চড়া করে দিয়েছে লাজিও। শোনা গেছে তারা নাকি ৭০ মিলিয়নের অফারও ফিরিয়ে দিয়েছে। এখন বার্সা আরও বেশি অফার করে কিনা সেটাই এখন দেখার বিষয়।

ক্রিশ্চিয়ান এরিকসন: বার্সেলোনা টার্গেটে রেখেছে টটেনহ্যাম হটস্পারের মিডফিল্ডার ক্রিশ্চিয়ান এরিকসনকে। মূলত ইনিয়েস্তার বিকল্প হিসেবেই তাকে দলে ভেড়ানোর চিন্তা বার্সার। তবে এই তারকার জন্য টটেনহ্যামকে এখনো কোনো প্রস্তাব দেয়নি বার্সা।

টবি আন্ডারউইয়াল্ড: মাসচেরানো দল থেকে ছেড়ে যাওয়ায় বেশ বিপাকের মধ্যেই পড়েছে কাতালান ক্লাবটি। অনেক খুঁজেও পাওয়া যাচ্ছে না তার কোনো বিকল্প। এখন এই তারকার বিকল্প হিসেবে টটেনহ্যামের বেলজিয়াম তারকা টবিকেই যোগ্য হিসেবে দেখছে দলটি।

আর্থার: গ্রেমিওর এই তারকাকে অনেক দিন ধরেই টার্গেটে রেখেছে বার্সা। তবে এতদিন তাকে ছাড়ার পরিকল্পনা ছিল না গ্রেমিওর। এখন শোনা যাচ্ছে বার্সার ৩৯ মিলিয়নের প্রস্তাবে এই ব্রাজিলিয়অন মিডফিল্ডারকে ছাড়তে রাজি হয়েছে গ্রেমিও। তবে বার্সা তাকে কেনার ব্যাপারে মন ঠিক করতে পারছে না। খুব সম্ভবত বিশ্পকাপের পর এই তারকার ভাগ্য নির্ধারন হবে।

বার্সা ছাড়ছে যাদের:

আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা: বার্সেলোনার সাথে দীর্ঘ ২২ বছরের সম্পর্ক আনুষ্ঠানিকভাবে ইতি টেনেছেন ইনিয়েস্তা। এক সংবাদ সম্মেলন করে নিজেই জানিয়েছেন এ তথ্য। সেখানে উপস্থিত ছিল বার্সা কর্তারাও। আগামী রবিবারই হবে বার্সায় এই তারকার শেষ ম্যাচ।

আন্দ্রে গোমেজ: পর্তুগালের এই তারকা বার্সায় আসার পর থেকেই আছেন অস্বস্তিতে। একাদশে তো সুযোগ হচ্ছে না, তার উপর যাও দু’একদিন নামছেন করতে পারছেন না পারফরমেন্স। তাছাড়া তার খেলায় নাকি মেসি-পিকেরাও সন্তুষ্ট নন। এত কিছুর পর গোমেজ নিজেই বার্সাকে অনুরোধ জানান তাকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য। শোনা যাচ্ছে তার অনুরোধ নাকি রাখবে বার্সা।

জেসপার সিলেসেন: ২০১৬ সালে আয়াক্স থেকে বার্সায় জয়েন করেন এই ডাচ গোলকিপার। তবে বার্সায় আসার পর তার সময় কাটে বেঞ্চে বসে।  যদিও কোপা দেল রের ম্যাচে নামানো হয় এই গোলকিপারকে। তবে এতে খুশি নন সিলেসেন। তাই আগামী মৌসুমেই বার্সা ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

থমাস ভারমালেন: বেলজিয়ামের এই তারকা ডিফেন্ডার বার্সায় এসে শুরুতেই প্রথম একাদশে জায়গা করে নেন। তবে মাঝপথেই এসে পাল্টে যায় চিত্র। স্যামুয়েল উমতিতি ও পিকে ইনজুরি উঠায় তার জায়গা হয় সাইড বেঞ্চে ডিগনি, ভিদাল ও আল কাছেররদের সাথে। তাই এ তারকা বার্সা ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয়েছেন।

ad