গুলবাদিন নাইবের ভয়ঙ্কর অভিযোগ

এক বিশ্বকাপে টানা ৯ ম্যাচ হেরে লজ্জার রেকর্ড গড়েছে আফগানিস্তান। যে কারণে বিশ্বকাপের পরই অধিনায়কত্ব হারাতে হয়েছে গুলবাদিন নাইবকে। দীর্ঘদিন চুপ থাকার পর অবশেষে মিডিয়ার সামনে মুখ খুলেছেন তিনি।

এক সাক্ষাৎকারে গুলবাদিন বলেন, সিনিয়রদের পারফরম্যান্সের ওপর আফগানিস্তান দল নির্ভরশীল। কিন্তু এই সিনিয়ররাই বিশ্বকাপে ইচ্ছে করে খারাপ খেলেছে। যার প্রভাব পড়েছে দলের ফলাফলের ওপর।

আফগান দলে সিনিয়র মূলত রাশিদ খান, মোহাম্মদ নাবি, আসগর আফগান ও মোহাম্মদ শেহজাদ, সামিউল্লাহ শিনওয়ারি। এই পাঁচ তারকাই মূলত আফগান দলের মূল মাথা। বিশ্বকাপের ঠিক আগ মুহূর্তে আসগর আফগানকে সরিয়ে ক্যাপ্টেন করা হয় গুলবাদিনকে। তখন বোর্ডের এই সিদ্ধান্তের সরাসরি বিরোধীতা করেন রাশিদ ও নাবী। আর বিশ্বকাপ চলাকালীন অজানা কারণে ইনজুরি দেখিয়ে দেশে পাঠিয়ে দেওয়া হয় শেহজাদকে। যা নিয়ে ব্যাপক তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়।

সাবেক এই অধিনায়ক আরও বলেন, তারা আমার কথার কোনো গুরুত্ব দিত না। ম্যাচ হেরে তারা দুঃখিত না হয়ে ড্রেসিংরুমে হাসাহাসি করত! ম্যাচের মধ্যে আমি যখন তাদের কোনো নির্দেশনা দিতাম, তখন তারা আমার দিকে তাকাতই না!

বিশ্বকাপের বাজে পারফর্মের জন্য এমনিতেই বোর্ডের উপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে ঝড়। যদিও তিন ফরম্যাটেই রাশিদ খানকে অধিনায়ক করা হয়েছে। তবে গুলবাদিনের অভিযোগে আরও একটি ঝড় আসন্ন আফগান ক্রিকেটে।

মন্তব্য লিখুন :