হতশ্রী ব্যাটিংয়ের আরও একটি প্রদর্শনী

নতুন দিন, নতুন ম্যাচ; কিন্তু বদলায় না বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ব্যাটিংয়ের বেহাল দশা। প্রথম দুই ম্যাচের মতো আজও টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ। বলা বাহুল্য, ব্যাটিংয়ের অবস্থাও আগের দুই ম্যাচের মতোই। আজ সিরিজের শেষ ম্যাচে সংগ্রহ ৭ উইকেটে ১২৪ রান।

হোয়াইটওয়াশ এড়াতে হলে এই রানেই বাধতে হবে পাকিস্তানকে। আর কোনোমতে ১২৫ করতে পারলেই বাংলাদেশকে হোয়াইটওয়াশের লজ্জা দেবে পাকিস্তান।

আজ সিরিজের শেষ ম্যাচে প্রথম ছয় ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৩৩ রান। দ্বিতীয় ম্যাচের তুলনায় রান তিনটি কম হলেও, উইকেট একটি কম হারিয়েছে বাংলাদেশ। আর প্রথম ম্যাচের তুলনায় পড়েছে দুইটি কম উইকেট।

ম্যাচের দ্বিতীয় ওভারেই সাজঘরে ফিরে গেছেন এই ম্যাচের ওপেনার হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া নাজমুল হোসেন শান্ত। দ্বিতীয় উইকেটে জুটি গড়েন নাইম শেখ ও এই ম্যাচ দিয়েই দলে ফেরা শামীম পাটোয়ারী। তারা বেশকিছু সময় উইকেটে থাকলেও লাভের লাভ কিছুই হয়নি। মন্থর ব্যাটিংয়ে বাড়েনি রানের চাকা।

অষ্টম ওভারে ২৩ বলে ২২ রান করে শামীম আউট হলে ক্রিজে আসেন আফিফ। শুরুতে তিনি আশা জাগালেও আগের দুই ম্যাচের মতো আজও বড় ইনিংস খেলতে ব্যর্থ। ২১ বলে ২০ রান শিকার হন ওসমান কাদিরের। এরপর যা হলো তা অবাক করার মতোই। অধিনায়ক রিয়াদ এসে খেললেন টেস্ট ম্যাচ। তার সাথে থাকা নাঈমও বল চোখে দেখছিলেন না। টানা ৬ ওভার কোনো চার আসেনি এই দুজনের ব্যাট থেকে। তার আগের ৬ ওভারেও আসেনি কোনো চার।

নাঈম ১৯ ওভার পর্যন্ত ক্রিজে থাকলেও করেছেন ৫০ বলে ২ চার ও ২ ছয়ে ৪৭ রান। আর রিয়াদ ১৪ বলে করেন ১৩ রান। বাংলাদেশের ইনিংস থামে ১২৪ রানেই।

ওসমান কাদির ৪ ওভারে ৩৫ রানে ২ উইকেট ও ওয়াসিম জুনিয়র ১৫ রানে নিয়েছেন ২ উইকেট।