টাইগারদের ভয়াবহ সমুদ্রযাত্রা, অসুস্থ হয়ে পড়েন অনেকেই

ডমিনিকার উইন্ডসর পার্কে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টি–টোয়েন্টি সিরিজে খেলতে শনিবার (২ জুলাই) নামবে বাংলাদেশ। এর আগে সেন্ট লুসিয়া থেকে ডমিনিকার উদ্দেশে সমুদ্রযাত্রায় ভয়াবহ অভিজ্ঞতার সাক্ষী হলো টাইগার ক্রিকেটাররা।


সমুদ্রযাত্রায় অসুস্থ হয়ে পড়েন অনেকেই। কেউ বমি করছেন, কেউবা চিৎপটাং হয়ে পড়ে আছেন ফ্লোরে। রীতিমতো যেনো এক হাসপাতাল। একসঙ্গে বাংলাদেশের এতো ক্রিকেটারকে আগে কোনো বিদেশ যাত্রায় অসুস্থ হতে দেখা যায়নি।


সেন্ট লুসিয়া থেকে মার্টিনেক হয়ে ডোমিনিকা। সব মিলিয়ে দীর্ঘ ৫ ঘণ্টার ভ্রমণ। সমুদ্র পার হতে হবে ফেরি দিয়ে। শুরুতে বাংলাদেশের ক্রিকেটারা বেশ উপভোগ করছিলেন উত্তাল সমুদ্র।


তবে যত সময় গড়াতে থাকে, ততই ঢেউ আর ফেরির দুলোনিতে মনে ভয় ধরে যায় তাদের। বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম, উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান, টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, ম্যানেজার নাফিস ইকবাল এবং সাপোর্ট স্টাফের এক সদস্য ‘মোশন সিকনেসে’ আক্রান্ত হন।



তাদের কয়েকজন বমিও করেন এসময়। কয়েকজন ভীষণ অসুস্থ হয়ে শুয়ে পড়েন ফ্লোরেই। এমতাবস্থায় কিছুতেই তারা বাকি পথ ফেরিতে করে যেতে চাইছিলেন না। কিন্তু যাত্রার মাঝপথে আর বিরতি দিয়ে বিমান জোগাড় করা সম্ভব হয়নি। ফলে বাকি পথ এভাবেই পাড়ি দিয়েছেন ক্রিকেটাররা।


ভাগ্য ভালোই বলতে হবে। পরে সাগর কিছুটা শান্ত হয়ে উঠে। ক্রিকেটাররাও পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেন অনেকটাই। তবে তাদের মনের ভয়টা দূর হয়নি এখনও। ঢেউয়ের মধ্যে বিভীষিকাময় এক অভিজ্ঞতার কথা জাগো নিউজের সঙ্গে আলাপে জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক টাইগার দলের এক সদস্য। এমন একটি যাত্রায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) কী করে রাজি হলো, সেই প্রশ্নও রাখেন তিনি।


যদিও শেষ পর্যন্ত ভয়ংকর এই যাত্রা শেষ করে সেন্ট লুসিয়া থেকে ডোমিনিকায় পৌঁছেছে দল। ক্রিকেটাররা এখন বিশ্রামে আছেন। বিভীষিকাময় এক ভ্রমণের পর ডোমিনিকায় তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হবে টাইগারদের। ২ জুলাই প্রথম টি-টোয়েন্টি।