আবারও রিমান্ডে অভিনেত্রী নওশাবা

jagoran- Nawashaba, against, case,
ad

জাগরণ ডেস্ক: ফেসবুক লাইভে এসে জিগাতলায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থী নিহতের বিষয়ে গুজব ছড়ানোর দায়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে দায়ের করা মামলায় চারদিনের রিমান্ড শেষে অভিনেত্রী কাজী নওশাবার আবারও দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

শুক্রবার (১০ আগস্ট) বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে ঢাকা মহানগর হাকিম আমিরুল হায়দার চৌধুরী এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য দশদিনের রিমান্ড আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। তবে শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম আমিরুল হায়দার চৌধুরী দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে গত শনিবার (৪ আগস্ট) রাতে নওশাবাকে উত্তরা এলাকা থেকে আটক করে র‌্যাব-১। পরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রাত সাড়ে ১০টার দিকে র‌্যাব-১ এর কার্যালয়ে আনা হয় নওশাবাকে।

রুদ্র নামে এক স্কুলছাত্র মোবাইলফোনের মাধ্যমে নওশাবাকে জানায় জিগাতলায় নিহতের খবর। এরপরই উত্তরার একটি শ্যুটিংস্পট থেকে ফেসবুক লাইভে যান তিনি। মোবাইল ফোনে শোনা কথাগুলোই ফেসবুক লাইভে বলার পর সবাইকে রাস্তায় নেমে আসারও আহ্বান জানান নওশাবা। মিথ্যা তথ্য ও গুজব ছড়ানোর বিষয়টি র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকারও করেছেন কাজী নওশাবা আহমেদ।

গত শনিবার দুপুরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের ধানমন্ডির কার্যালয়ের কর্মীদের সংঘর্ষ বাধার পর জিগাতলা এলাকা রণক্ষেত্রে রূপ নেয়। বিকাল পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে চলা সংঘর্ষে হেলমেট পরা একদল যুবককে আগ্নেয়াস্ত্র হাতে দেখা যায়। সংঘর্ষে শিক্ষার্থীদের মৃত্যুর গুজব ছড়িয়ে পড়লে অভিনেত্রী নওশাবা বিকাল ৪টার দিকে ফেসবুক লাইভে আসেন।

লাইভ ভিডিওর শুরুতেই তিনি বলেন, আমি কাজী নওশাবা আহমেদ বলছি, আপনাদেকে জানাতে চাই, একটু আগে জিগাতলায় আমাদের ছোট ভাইদের একজনের চোখ তুলে ফেলা হয়েছে, দুজনকে মেরে ফেলা হয়েছে।

ছাত্রলীগ এই হামলা করেছে দাবি করে তিনি বলেন, একটু আগে অ্যাটাক করেছে, ছাত্রলীগের ছেলেরা। তারা জিগাতলায় আছে। আপনারা এখনই নামবেন, আপনাদের বাচ্চাদের নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যাবেন। ট্রাফিক যে পুলিশরা আছেন, প্লিজ আপনারা নিজের দেশের বাচ্চাদের প্রটেকশন দেবেন। কিছু একটা করেন। সরকার যদি দায়িত্ব নিতে না পারে, তবে জনগণ কিসের জন্য আছি আমরা? আমরা ৭১ দেখেছি, বায়ান্ন দেখেছি, আমরা এবারও পারবো।

ad