তিস্তার পানি বিপদসীমা ছুঁই ছুঁই, ডুবছে চরাঞ্চল

tista
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: ভারি বর্ষণ আর উজানের ঢলে গর্জে উঠেছে তিস্তা নদী। অব্যাহতভাবে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নীলফামারী জেলার দুই উপজেলার তিস্তা চরবেষ্টিত এলাকায় পানি ঢুকতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যেই বেশ কয়েকটি চর ডুবে গেছে উজানের পানিতে।

রবিবার (১ জুলাই) সকাল থেকে তিস্তা নদীর পানি ডালিয়া তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে বিপদসীমার মাত্র ৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সারাদিন ধরেই পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।

নীলফামারীর ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা নিয়ন্ত্রণ পূর্বাভাস ও সতর্কীকেন্দ্র তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানায়, রবিবার সকাল ৬টায় ডালিয়ার তিস্তা ব্যারাজের বাইশপুকুর পয়েন্টে তিস্তার পানি ৫২ দশমিক ৫০ মিটার দিয়ে প্রবাহিত হয়। তিন ঘন্টা পর সকাল ৯টায় ওই পয়েন্টে তিস্তার পানি আরও ৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পায় ও দুপুর ১২টায় আরও ১ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে ৫২ দশমিক ৫৬ মিটার দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এছাড়াও, পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। যে কোনো সময় তিস্তার পানি বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে বলে জানায় পূর্বাভাস কেন্দ্র। এছাড়া ২৪ ঘন্টায় তিস্তা অববাহিকায় বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয় ৯৯ মিলিমিটার। পানি বৃদ্ধির কারণে দেশের সর্ববৃহৎ তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে রাখা হয়েছে।

এদিকে, তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নীলফামারীর ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার তিস্তা চরবেস্টিত গ্রামগুলোতে পানি প্রবেশ করতে শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন জনপ্রতিনিধিরা।

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রফিকুল আলম জানান, রবিবার সকাল হতে তিস্তা নদীর পানি ক্রমাগতভাবে বৃদ্ধি পেয়ে চলেছে। আমরা সর্তকাবস্থায় থেকে তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে দিয়ে রেখেছি।

ad