নলছিটিতে ঘরে ঢুকে হাত-পা বেঁধে স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণ

Rape
ad

স্থানীয় প্রতিনিধি: ঝালকাঠির নলছিটিতে দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে হাত, পা ও মুখ বেঁধে অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১৪) গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে তিন যুবকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

গত বৃহস্পতিবার (৩ মে) রাত ৮টার দিকে উপজেলার সরমহল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, নলছিটি উপজেলার সরমহল গ্রামের তিন বখাটে সুজন তালুকদার (৩০), জুলহাস খান (২৫) ও সাব্বির হাওলাদার (১৯) গত বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে স্থানীয় এক ভ্যান চালকের ঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। এ সময় ওই ভ্যান চালক বাড়িতে ছিলেন না। বখাটেরা তার মেয়েকে ঘরে একা পেয়ে হাত-পা ও মুখ বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

পরে রাত ১০টার দিকে মেয়েটি তার বাবা বাড়িতে ফিরলে ধর্ষণের ঘটনা জানায়। পরের দিন শুক্রবার বিষয়টি স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের কাছে জানান স্কুলছাত্রীর বাবা। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মেয়ের বাবাকে হুমকি দেয় ওই বখাটেরা। এ অবস্থায় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের পরামর্শে শনিবার নলছিটি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেন মেয়েটির বাবা।

নির্যাতনের শিকার মেয়েটির বাবা অভিযোগ করেন, আমি স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের কাছে বিষয়টি জানিয়েছি। এতে ধর্ষণকারীরা আমার ওপর ক্ষিপ্ত হয়েছে। আমি যাতে মামলা না করে শালিস ব্যবস্থায় রাজি হই, এজন্য চাপ দিচ্ছে। আমি কুশঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যানের কাছেও নালিশ করেছি। তিনি আমাকে আইনের আশ্রয় নিতে বলেছেন।

কুশঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যান মো. আলমগীর হোসেন বলেন, মেয়েটির বাবা একজন দিনমজুর। ঘটনার পর আমার কাছে অভিযুক্তদের একটি পক্ষ শালিস মীমাংসার প্রস্তাব দিয়েছিল। আমি তাদের ফিরিয়ে দিয়েছি। এটা একটি জঘন্য অপরাধ, আমি চাই মেয়েটির পরিবার আইনের মাধ্যমে ন্যায় বিচার পাক।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নলছিটি থানার পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) আবদুল হালিম তালুকদার বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ad