শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যেই ট্রাফিক সপ্তাহ শুরু কাল

jagoran- Traffic week, start, time,
ad

জাগরণ ডেস্ক: নিরাপদ সড়কের দাবিতে সারাদেশে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যেই আগামীকাল (৫ আগস্ট) থেকে ট্রাফিক সপ্তাহ পালনের ঘোষণা দিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।

শনিবার (৪ আগস্ট) দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে ব্রিফিংকালে তিনি এ ঘোষণা দেন।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, যানবাহনের কাগজপত্র পরীক্ষার হাত থেকে বাঁচতে পারবেন না ভিআইপি (গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তি), সিআইপিরাও (কমার্শিয়াল ইমপরটেন্ট পারসন)। রাজধানীর সব তল্লাশি চৌকিতে যানবাহনের কাগজপত্র পরীক্ষা করতে পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ভিআইপি, সিআইপি, পুলিশ কর্মকর্তা কাউকে ছাড় নয়।

তিনি বলেন, পুলিশ সদস্যরা যানবাহনের বৈধতা, মেয়াদ, ফিটনেস, চালকের লাইসেন্স যাচাই-বাছাই করবেন। স্কাউট-গার্লস গাইডদের নিয়ে যানবাহনের কাগজ যাচাই করবে পুলিশ। ট্রাফিক পুলিশ সপ্তাহে প্রভাবশালীদের আইন না মানার অপচেষ্টা ও রাস্তা পারাপারের জন্য জনগণকে ফুট ওভারব্রিজ ব্যবহার উদ্বুদ্ধ করা হবে।

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, শিক্ষার্থীদের চেতনা আমরা বুঝতে পেরেছি। এখন থেকে কেউ সড়ক আইন অমান্য করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। শিক্ষার্থীরা আইন প্রয়োগে আমাদের নৈতিক ভিত্তি দিয়েছে, আমরা এই ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়ে এখন ট্রাফিক রুলের কঠোর প্রয়োগে উদ্যোগ নিয়েছি। শিক্ষার্থীরা এভাবে রাস্তায় থাকার কারণে জনদুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে, অব্যবস্থাপনা দেখা দিয়েছে, এই অবস্থাও চলতে দেয়া যায় না।

তিনি আরও বলেন, অনুপ্রবেশকারীরা সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে ঢুকে পড়েছে। বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় নানা ধরনের উস্কানিমূলক স্ট্যাটাস দেয়া হচ্ছে। নোংরা ভাষায় প্ল্যাকার্ড ব্যবহার করা হচ্ছে। আমার ধারণা একটা ছাত্রদের নয়। এটা অন্যরা তাদের হাতে ধরিয়ে দিচ্ছে। অনুপ্রবেশকারীরা সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে ঢুকে পড়েছে। ছাত্রদের আন্দোলনকে পুঁজি করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছে।

ডিএমপি কমিশনার আরও বলেন, অভিভাবকদের অনুরোধ করবো, আপনাদের সন্তানদের বিদ্যালয়ে ফিরিয়ে নিয়ে যান। অনেক আগেই আমাদের যা করা উচিৎ ছিল, অথচ নানা সীমাবদ্ধতার কারণে আমরা তা করতে পারিনি- শিক্ষার্থীরা সেই কাজ করে দেখিয়েছে। কিন্তু আপনারা দেখেছেন, যাত্রাবাড়ীতে লাইসেন্স চেক করার জন্য একটি পিকআপ ভ্যানকে থামানো চেষ্টা করে এক ছাত্র। চালক পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে ওই ছাত্র চাপা পড়ে। সে এখন ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ রকম ঘটনা আরও ঘটেছে। এই বিষয়গুলো নিয়ে, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার বিষয় নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন।

ad