সোহরাওয়ার্দীর জনসভা মঞ্চে প্রধানমন্ত্রী

Public meeting, stage, prime minister,
ad

জাগরণ ডেস্ক: ১৯৭১ সালের ঐতিহাসিক ৭ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণের বর্ষপূর্তি উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভার মঞ্চে উপস্থিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার (৭ মার্চ) বেলা ৩টায় তিনি সভাস্থলে পৌঁছান।

মঞ্চে প্রধানমন্ত্রীর পাশে বসে আছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এবং আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী।

জনসভাস্থলে প্রধানমন্ত্রী আসার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে উপস্থিতি নেতা-কর্মীরা দাঁড়িয়ে শ্লোগান দিতে থাকেন। প্রধানমন্ত্রীও হাত নেড়ে তাদের জবাব দেন। এর আগেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যান কানায় কানায় পূর্ণ হয়েছে।

আশপাশের এলাকাগুলোতেও দলীয় নেতা-কর্মীসহ সাধারণ মানুষের ব্যাপক ভীড় রয়েছে। রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের জেলাগুলো থেকেও এসেছেন হাজার হাজার মানুষ। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সব গেট দিয়ে প্রবেশ করছেন নেতা-কর্মীরা। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের প্রতিটি প্রবেশ পথ দিয়ে সুসজ্জিত পোশাকে মিছিল নিয়ে প্রবেশ করেন অংশগ্রহণকারীরা।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা উপলক্ষে এরই মধ্যে আশপাশের সড়ক বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। মৎস্য ভবন থেকে শাহবাগ ও শাহবাগ থেকে টিএসসি এবং দোয়েল চত্বর এলাকাও বন্ধ রয়েছে। তবে জনসভাকে কেন্দ্র করে কাকরাইল থেকে হাইকোর্ট এলাকায় যান চলাচল শিথিল রয়েছে।

এদিকে, সমাবেশ মঞ্চে রাখা হয়েছে ৭ মার্চে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের আদলে তৈরি করা প্রতিকৃতি। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতীক ছোট আকারের নৌকা শোভা পাচ্ছে অনেকেরই হাতে। মিছিলের মানুষ অনেকে পরেছেন এক রঙের গেঞ্জি।

যুবলীগের কর্মীরা পরেছেন সবুজ রঙের টি-শার্ট। এর কলার লাল রঙের। তাদের মাথায় সবুজ রঙের টুপি। এমন একই রঙের টি-শার্ট যাঁরা পরেছেন, তাঁরা দলবদ্ধ হয়ে বসেছেন সভামঞ্চের সামনে। সোহরাওয়ার্দীর সবুজের মধ্যে তাই লাল, সবুজ, হলুদের সমারোহ।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানজুড়ে নেওয়া হয়েছে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা। সভাস্থলে ঢোকার আগে সবারই তল্লাশি চলেছে। সেনাবাহিনীর সদস্যরা আছেন নিরাপত্তার দায়িত্বে।

ad