ভারতে হামলার জন্য পরমাণু অস্ত্রবাহী ডুবোজাহাজ পাঠিয়েছিল পাকিস্তান

বালাকোট এয়ার স্ট্রাইকের পর যখন পরিস্থিতি যুদ্ধের পর্যায়ে চলে গিয়েছিল তখন ভারত সীমান্তের খুব কাছে পরমাণুবাহী ডুবোজাহাজ পাঠিয়েছিল পাকিস্তান। পাকিস্তানের পশ্চিম উপকূলে এই সাবমেরিনকে লুকিয়ে রাখা হয়েছিল যাতে সময়মতো হামলা করা যায়।

ভারতীয় নৌবাহিনীর কর্মকর্তারা সম্প্রতি এ তথ্য প্রকাশ করেছেন।

তাদের দাবি, পুলওয়ামা হামলার পরে জরুরি ভিত্তিতে পদক্ষেপ করেছিল নৌসেনাও। যুদ্ধজাহাজ আইএনএস বিক্রমাদিত্যসহ ৬০টি যুদ্ধজাহাজকে উত্তর আরব সাগরে মোতায়েন করা হয়। পাকিস্তানি জলসীমার কাছে সক্রিয় হয় পরমাণু অস্ত্রবাহী ডুবোজাহাজ আইএনএস চক্র। এই সময়ে পাকিস্তানি জলসীমার ভিতর থেকে হঠাৎ উধাও হয়ে যায় সে দেশের নৌসেনার ডুবোজাহাজ পিএনএস-সাদ।

নৌসেনার গোয়েন্দারা জানান, করাচির কাছে যে এলাকা থেকে সাড উধাও হয়েছে সেখান থেকে সেটি তিন দিনে গুজরাট উপকূলে পৌঁছতে পারে। পাঁচ দিনের মধ্যে পৌঁছতে পারে ভারতীয় নৌসেনার ওয়েস্টার্ন ফ্লিটের সদর দফতর মুম্বাইয়ে। ফলে ওই সময়সীমার মধ্যে পিএনএস-সাদ যে সব এলাকায় গিয়ে থাকতে পারে সেখানে তল্লাশি শুরু করে নৌসেনা। প্রায় ২১ দিন পর জাহাজটির খোঁজ পায় ভারতের সেনা।

নৌবাহিনীর কর্তাদের একাংশের ধারণা হয়, জলপথে হামলা করার পরিকল্পনা করেছিল পাকিস্তান। পাকিস্তানের যে যুদ্ধজাহাজের অবস্থান জানা যাচ্ছে না সেটি বিশেষ শক্তিশালী। অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সাহায্যে ওই যুদ্ধজাহাজকে পানির অনেক নিচে লুকিয়ে রাখা যায় এবং তা রাখা যায় দীর্ঘ সময় ধরে। জাহাজটি পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম এবং দ্রুত হামলা চালাতে সক্ষম ছিল।

মন্তব্য লিখুন :