ইরানে হামলা হবে না এর কোনো নিশ্চয়তা নেই: যুক্তরাষ্ট্র

ইসরায়েলের সাথে আলোচনার পর ইরানকে ফের হুমকি দিল যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন ইরানকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, আমেরিকার বিচক্ষণতাকে দুর্বলতা বলে ভাববেন না।

তিনি বলেন, ইরানকে কেউ পশ্চিম এশিয়ায় খবরদারি করার অধিকার দেয়নি।গত শুক্রবার ভোররাতে ইরানের উপরে হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছিল আমেরিকা। ১৫০ নাগরিকের প্রাণ যেতে পারে, এই তথ্য পাওয়ার পরে সিদ্ধান্ত পাল্টান ট্রাম্প। প্রেসিডেন্ট চাননি বলে হামলা হয়নি। পরের বারও যে হবে না, এটা ভাবার কারণ নেই।

গতকাল জেরুজালেমে এক বৈঠকে ইজ়রায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর সাথে বসেন বোল্টন। ওই বৈঠকের পরই তিনি এমন হুশিয়ারি দেন।

এদিকে, ইরানের পূর্বশর্ত মেনে আলোচনায় আগ্রহী নন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, পরমাণু চুক্তির ধরন নিয়ে কিছু আসে যায় না। শুধু দেখতে হবে, ইরানের হাতে পরমাণু অস্ত্র কোনও অবস্থাতেই যেন না থাকে।

ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করার সীমা বিষয়ে বিশ্বের পরাশক্তিগুলোর সঙ্গে ইরানের চুক্তি হয়েছিল ২০১৫ সালে। সে অনুযায়ী কিছু বিষয়ে নিষেধাজ্ঞাও তুলে নেওয়া হয়েছিল এবং ইরানকে তেল রপ্তানির অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।

কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র গত বছর চুক্তিটি প্রত্যাহার করে এবং নিষেধাজ্ঞাও জারি করে। যার ফলে ইরান আবারও অর্থনৈতিক মন্দার সম্মুখীন হয় এবং তার মুদ্রার মান হ্রাস পায়।

পারস্য উপসাগরে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর দুটি জাহাজে রহস্যজনক কমান্ডো অভিযান থেকে নতুন করে ইরান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সংঘাত পরিস্থিতি তীব্র হয়। আরব দেশগুলির দাবি, কমান্ডো পাঠিয়েছিল ইরান। পরে সেই রেশ ধরে পারস্য উপসাগরের অতি গুরুত্বপূর্ণ হরমুজ প্রণালী অভিমুখে মার্কিন রণতরী পাঠানো হয়। পাল্টা ইরানি নৌ সেনা অবস্থান নেয়। গত বৃহস্পতিবার ভোরে ইরানের সেনা একটি মার্কিন গোয়েন্দা ড্রোনকে গুলি করে ধ্বংস করে। এর ফলে পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়। এরই জেরে সোমবার থেকে ইরানের উপর নতুন নিষেধাজ্ঞা দেয় আর ইরান যুক্তরাষ্ট্রকে ধ্বংস করে দেওয়ার হুমকি দেয়।

মন্তব্য লিখুন :