ট্রাম্পের ব্ল্যাক লিস্টে খামেনিসহ ১০ শীর্ষ কর্তা

ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ ছাড়াও ৮ শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

সোমবার হোয়াট হাউসে এ-সংক্রান্ত একটি নিষেধাজ্ঞাপত্রে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প স্বাক্ষর করেন বলে খবর দিয়েছে এএফপি, রয়টার্স ও আলজাজিরা।

ট্রাম্প নতুন নিষেধাজ্ঞাকে ইরানের প্রতি ‘শক্ত ও উচিত জবাব’ বলে অভিহিত করেছেন।

হুঁশিয়ারি দিয়ে ট্রাম্প বলেন, আমি মনে করি, যথেষ্ট ধৈর্য ধরেছে যুক্তরাষ্ট্র, যথেষ্ট। এর অর্থ এই নয়, ভবিষ্যতেও আমরা এই ধৈর্যই ধরে যাব। এখন থেকে যে কোনো কিছুই ঘটে যেতে পারে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, আমরা কোনো দ্বন্দ্ব চাই না। এই নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি একান্তই ইরানের ওপর নির্ভর করছে। তারা চাইলে আগামীকালই এটির মেয়াদ শেষ হতে পারে... আর তা না হলে এখন থেকে এটি বছরের পর বছর চলবে।

ট্রাম্প বলেন, ইরান কখনো পারমাণবিক অস্ত্রের মালিক হতে পারবে না, যুক্তরাষ্ট্র এটাই চায়। এটা এখন ইরানের ভাবনার বিষয়।

নতুন নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফকে ও দেশটির এলিট ফোর্স রেভল্যুশনারি গার্ডের শীর্ষ ৮ কর্মকর্তাকে কালো তালিকাভুক্ত করলো। এই শীর্ষ ৮ সামরিক কর্তার মধ্যে সেনা ও বিমানবাহিনী কমান্ডার এবং ৫ নৌ জেলার কমান্ডার রয়েছেন।

ট্রাম্পের এই নিষেধাজ্ঞার পরপরই দেশটির অর্থমন্ত্রী স্টিভেন মানচিন সাংবাদিকদের বলেন, নতুন নিষেধাজ্ঞার ফলে খামেনি এবং তার অফিসের বিলিয়ন ডলারের সম্পদ ‘আটকা’ পড়লো।

যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যে বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে সম্পর্কের চরম টানাপোড়েন চলছে। উপসাগরীয় এলাকায় তেলবাহী ট্যাংকারে হামলা ও ড্রোন ভূপাতিত করার ঘটনায় ইরানকে দায়ী করে গত শনিবার নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপের কথা জানান ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ইরান তেলবাহী ট্যাংকারে হামলার কথা অস্বীকার করলেও মার্কিন সামরিক ড্রোনের আকাশসীমা লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে তা ভূপাতিত করার কথা স্বীকার করেছে।

মন্তব্য লিখুন :