সাবেক সেনাশাসক মোশাররফের মৃত্যুদণ্ড বাতিল

পাকিস্তানের সাবেক সেনাশাসক পারভেজ মোশাররফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে দেওয়া মৃত্যুদণ্ডের রায় লাহোর হাইকোর্টে বাতিল হয়ে গেছে। গত বছরের ১৭ ডিসেম্বর তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয় ইসলামাবাদের বিশেষ আদালতের তিন সদস্যের বেঞ্চ। নতুন রায়ের পর এখন থেকে একজন মুক্ত মানুষ বিবেচিত হবেন মোশাররফ।

সোমবার এক রায়ে লাহোর হাইকোর্ট, পারভেজ মোশাররফের বিচারের জন্য যে প্রক্রিয়ায় ওই বিশেষ আদালত গঠন করা হয়েছিল, তা সংবিধানসম্মত হয়নি উল্লেখ করে বিশেষ আদালত গঠনকেই অসাংবিধানিক ঘোষণা করেছে।

এরআগে, লাহোর হাইকোর্টে ওই আদালত গঠনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করেন মোশাররফ।

সোমবার লাহোর হাইকোর্টের নতুন রায়ের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে সরকারি প্রসিকিউটর ইশতিয়াক এ খান বলেন, (মোশাররফের বিরুদ্ধে) অভিযোগ দাখিল, আদালত গঠন, প্রসিকিউশন দল নির্বাচন অবৈধ ঘোষিত হবে। তিনি বলেন, ফলে তার বিরুদ্ধে এখন কোনও দণ্ড নেই।

মোশাররফের আইনজীবী আজহার সিদ্দিক রয়টার্সকে বলেছেন, পারভেজ মোশাররফকে নিয়ে হওয়া সিদ্ধান্ত লাহোর হাইকোর্ট বাতিল করেছে।

ইসলামাবাদের ওই বিশেষ আদালত সাবেক প্রেসিডেন্ট মোশাররফের অনুপস্থিতিতেই গত ১৭ ডিসেম্বর তাকে সর্বোচ্চ সাজার আদেশ দেয়। ২০০৭ সালের ৩ নভেম্বর অবৈধভাবে সংবিধান স্থগিত করে জরুরি অবস্থা জারি করায় রাষ্ট্রদ্রোহের অপরাধে দোষী সাব্যস্ত করে মোশাররফকে এ সাজা দেওয়া হয়।

১৯৯৯ সালে এক সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে সে সময়কার প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে অপসারণ করে ২০০৮ সাল পর্যন্ত পাকিস্তান শাসন করেন মোশাররফ। ২০১৬ সালের মার্চে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতি প্রকাশের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই দুবাইয়ের উদ্দেশে পাকিস্তান ছাড়েন মোশাররফ। বর্তমানে সেখানেই বসবাস করছেন তিনি।