ঝিনাইদহের সবজি যাচ্ছে সারাদেশে, লাভবান হচ্ছে কৃষক

ঝিনাইদহে আগাম শীতকালীন সবজি আবাদ করে লাভবান হচ্ছে কৃষকরা। শিম, ফুলকপি, লাউ, বেগুনসহ বিভিন্ন সবজির আবাদ করে সচ্ছলতা ফিরেছে শত শত কৃষক পরিবারে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, জেলার ৬ উপজেলায় আগাম শীত মৌসুমে প্রায় সাতে ৩ হাজার হেক্টর জমিতে সবজি আবাদ করেছে। এরই মধ্যে সবজি বিক্রি শুরু করেছে কৃষকরা। খরচের তুলনায় লাভ হচ্ছে বেশ ভালো। আবার বিক্রিতেও ঝামেলা নেই।

জেলার দৌড়া ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের সবজি চাষি আব্দুর রাজ্জাক জানান, বিঘা প্রতি কপি আবাদে ১৪-১৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। আর সবজি বুঝে ৩৫-৩৮ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। স্থানীয় বাজার গুলোর পাশাপাশি ঢাকার সবজি ব্যবসায়ীরা গ্রামের মাঠ থেকেই নগদে সবজি কিনছে।

এছাড়া জেলার সকল খুচরা কাঁচাবাজরে শাকসবজির দাম বৃদ্ধিতে বিক্রি হচ্ছে। হাটবাজার গুলোতে উচ্ছে ৫৫-৬০ টাকা, লাউ (আকার ভেদে) ৩০-৩৫ টাকা, পেঁপে ২০-২৫ টাকা, টমেটো ৭০-৭৫ টাকা, পুইশাকের মেছড়ি ৫০-৬০ টাকা, ডাটা-পুইশাক ১৫-২০ টাকা, বেগুন ৪০-৪৫ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ২৫-৩০ টাকা প্রতি কেজির দাম বিক্রি হচ্ছে।

বাজার গোপালপুরের সবজি ব্যবসায়ি শহিদুল ইসলাম জানান, বর্তমানে বাজারে সবজির চাহিদা বেশ ভালো, তাই বেশি দামেই কিনতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে ঝিনাইদহ কৃষি বিভাগের ডেপুটি ডিরেক্টর জিএম আব্দুর রউফ জানান, আমাদের কৃষি বিভাগ কৃষি উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। কৃষকরা সঠিক সময়ে আবাদ করার কারণে ফসলও উপযুক্ত সময়ে উঠেছে। বাজারে চাহিদা ও ভালো দাম থাকার কারণে তারা লাভবান হচ্ছে।