পুঠিয়ায় রেকর্ড পরিমাণ জমিতে রসুন চাষ

রাজশাহীর পুঠিয়ায় চলতি বছর রেকর্ড পরিমাণ জমিতে রসুনের চাষ করা হয়েছে। বাজারে ব্যাপক চাহিদা ও আশানুরূপ দাম পাওয়ায় চাষিরা এই মৌসুমে রসুন চাষে আগ্রহ বেড়েছে। স্থানীয় চাষীরা আশা করছেন, অনুকুল আবহাওয়া বিরাজ করলে এবার এ অঞ্চলে রসুনের বাম্পার ফলন হবে। 

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর উপজেলার ছয়টি ইউপি এলাকায় প্রায় দু’হাজার হেক্টোর জমিতে রসুনের চাষ করা হয়েছে। যা বিগত বছরের তুলনায় প্রায় ৮’শ হেক্টোর বেশী জমি। ধারনা করা হচ্ছে আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে প্রায় ১৯ হাজার দু’শত ৫০ মে.টন রসুন উৎপাদন হওয়া সম্ভব। 

সদর ইউনিয়নের তারাপুর বিলের রসুন চাষী হাসেম আলী বলেন, গত কয়েক বছর থেকে বৈরি আবহাওয়ার কারণে গম ও মসুরের জমিতে বিভিন্ন মোড়ক দেখা দিচ্ছে। যায় কারণে অধিংশ চাষীরা এখন রসুন চাষে ঝুঁকছেন। রসুনে জমিতে কিছু মড়ক থাকলেও বিভিন্ন বালাইনাশক ওষুধ ব্যবহার করে অনেক দমন করা সম্ভব। 

তিনি আরও বলেন, গত বছর আমি এক বিঘা জমিতে রসুন চাষ করে ছিলাম। দামও ভালো পেয়েছিলাম। এবার বাজারে রসুনের ব্যাপক দামও চাহিদা থাকায় এবার প্রায় আড়াই বিঘা জমিতে রসুন চাষ করেছি। এর মধ্যে প্রায় এক বিঘা জমিতে কাঁদামাটিতে রোপন করেছি। বর্তমানে রসুনের যে অবস্থা তাতে বিগত বছরের চেয়ে এবার আশানুরুপ ফলন পাব।

জিউপাড়া এলাকার অপর রসুন চাষী আবু তালেব বলেন, এ বছর অতিরিক্তি বর্ষার কারণে অনেকেই জমিতে চৈতালী ফসল বপন করতে পারেনি। অপরদিকে এ বছর রসুনের ভালো পাওয়ায় বেশীর ভাগ চাষীরা কাদাযুক্ত জমিতে রসুন রোপন করেছেন। 

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শামসুনাহার ভূইয়া বলেন, বৃষ্টিপাতের কারণে চলতি মৌসুমে সময়মত কিছু জমিতে রবি শস্য বপন করা যায়নি। তার ওপর এবার চাষিরা ভালো দাম পাওয়ায় অনেকেই রসুন চাষে বেশী আগ্রহ করেছেন। যার কারণে এবার উপজেলায় রেকর্ড পরিমান জমিতে রসুন চাষ করা হয়েছে। চাষীরা সময়মত রসুনে তদারকি করতে পারলে এবং আবহাওয়া অনুকুল থাকলে এবার রসুনের বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভবনা আছে।