ডোমারে ধানের বাম্পার ফলন, আতঙ্ক ধানের নেক ব্লাস্ট রোগের

করোনাভাইরাসের প্রভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া নীলফামারীর ডোমার উপজেলার কৃষকদের মুখে হাঁসি ফিরে আসে চলতি বোরো মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলনে। তবে সেই হাঁসি আবারো ম্লান করে দিয়েছে ধানের নেক ব্লাস্ট রোগ। 


জানা যায়, এবার ধানের বাম্পার ফলন হলেও কৃষকের আতঙ্ক ধানের নেক ব্লাস্ট রোগ। এ রোগে কোন কৃষকের আংশিক আবার কারো কারো ক্ষেতের বড় অংশের ধান চিটা হয়ে গেছে। কৃষকরা কৃষি কর্মকর্তাদের পাশে না পাওয়ার অভিযোগ করলেও কৃষি দপ্তর কৃষকদের সকল ধরনের সহযোগিতা করেছে বলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জানান।

একাধিক কৃষক জানান, তাদের জমিতে নেক ব্লাস্ট রোগে ধান চিটা হয়ে গেছে। তারা কৃষি কর্মকর্তাদের এ রোগের কথা জানালে কৃষি কর্মকর্তারা ধান ক্ষেতে না গিয়ে দুইটি ওষুধ স্প্রে করতে বলে। স্প্রে করার পর নেক ব্লাষ্টের আক্রমণ আরো বেড়ে যায়। 

এ ব্যপারে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ আনিছুজ্জামান জানান, করোনা মহামারির সময়ও আমরা কৃষকদের সকল ধরনের পরামর্শ দিচ্ছি। কিছু জায়গায় নেক ব্লাস্ট রোগ আক্রমণ করেছে। কৃষি কর্মকর্তা ও কৃষকদের চেষ্টায় আমরা তা নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছি। নেক ব্লাস্ট শুধুমাত্র ব্রি ধান-২৮ জাতে আক্রমণ করে। কৃষি অধিদপ্তরের পক্ষ হতে আমরা এ জাতের ধান চাষে নিরুৎসাহিত করে অন্যান্য উচ্চ ফলনশীল ধান চাষের পরামর্শ দিয়েছি।