বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার নিয়ে কটুক্তিকারী ইবির সেই ছাত্রী বহিষ্কার

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যার বিচারকে 'কাসুন্দি ঘাটা' বলা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ছাত্রীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে এ ঘটনা তদন্তের জন্য তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) রাত ৯টার দিকে উপাচার্যের বাসভবনে অনুষ্ঠিত এক জরুরী সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এস এম আব্দুল লতিফ স্বাক্ষরিত এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বহিষ্কৃত ঐ ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী।

তদন্ত কমিটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক পরেশ চন্দ্র বর্মণকে আহ্বায়ক করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. রেহেনা পারভীন এবং পরিসংখ্যান বিভাগের সভাপতি ড. সাজ্জাদ হোসেন। কমিটিকে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক কর্মী সাজ্জাদ হোসেন তার ফেসবুকে বঙ্গবন্ধু হত্যার আত্মস্বীকৃত খুনি মাজেদকে গ্রেফতারের পর একটি পোস্ট দেন। সেই পোস্টে ওই ছাত্রী লিখেছেন, 'শেখ মুজিব যদি খুন না হত তাহলে কী সে এখনো পর্যন্ত বেঁচে থাকতো? মুজিবুর রহমান অনেক বয়স পরই মারা গেছেন। কিন্তু আমরা আদিখ্যেতা জাতি একজনের খুনের বিচার করতে করতে ভুলেই যাই প্রতিদিন কতশত মানুষ আমাদের আশপাশে খুন হচ্ছে, গুম হচ্ছে। আমরা পুরাতন কাসুন্দি নিয়ে খুব বেশি ঘাটাঘাটি করতে পছন্দ করি।'

এমন মন্তব্যের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান নেতাকর্মীরা ওই ছাত্রীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের দাবি জানান।

ঐ ছাত্রীর বহিষ্কারের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন প্রশাসক অধ্যাপক ড. জহুরুল ইসলাম বলেন, ওই ছাত্রী যা বলেছেন, সেটা অবশ্যই ঠিক হয়নি। এটা আপত্তিকর মন্তব্য। তবে যদি সে ক্ষমা চেয়ে থাকে, তবে ভবিষ্যতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিষয়টি বিবেচনা করবে।