পুঠিয়ায় প্রেমিকের সাথে তরুণীর পলায়ন, অপহরণ মামলা বাবার

রাজশাহীর পুঠিয়ায় অপহৃত হওয়ার অভিযোগের ২৬ দিন পর এক কলেজছাত্রীকে উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। পাশাপাশি এ ঘটনার সাথে জড়িত পলাশ আহম্মেদ (২৪) নামের এক যুবককেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পলাশ আহম্মেদ উপজেলার শিলমাড়িয়া ইউনিয়নের সরগাছি গ্রামের আশরাফ আলীর ছেলে এবং উদ্ধারকৃত কলেজছাত্রী পুঠিয়া মহিলা ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী।

জানাগেছে, গত ১৪ অক্টোবর সকালে কলেজে আসার পথে উক্ত ছাত্রীকে পলাশ অপহরণ করে নিয়ে যায় বলে ছাত্রীর পিতা অভিযোগ করেন। তিনি এ বিষয়ে ওই যুবকের বিরুদ্ধে অপহরণ করা হয়েছে মর্মে থানায় একটি মামলাও দায়ের করেছেন। পুলিশ মামলার সূত্র ধরে রবিবার (১০ নভেম্বর) বেলা ১২টার দিকে উপজেলার ভালুকগাছি ইউনিয়নের বাঁশবাড়ি গ্রামে অবস্থিত একটি বাড়ি থেকে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করেন।

তবে উদ্ধারের পর ওই কলেজ ছাত্রী বলেন, পলাশের সাথে র্দীঘদিন থেকে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে তার। বিষয়টি পরিবারের কাছে জানালে পরিবার তাদের সম্পর্ক মেনে নেয়নি। তাই তারা বাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করেন। তবে বিয়ের কোনো প্রমাণ তারা থানা পুলিশকে দেখাতে পারেননি।

মামলার বাদী কলেজ ছাত্রীর বাবা বলেন, ঘটনার দীর্ঘ এক মাস থেকে অভিযুক্ত পলাশ আমার মেয়েকে জোরপূর্বক আটকে রেখেছে। আমরা অনেক খোঁজাখুজির পরও তাদের সন্ধান পেয়ে থানায় খবর দেই। পরে পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।

পুঠিয়া থানার ওসি রেজাউল ইসলাম জানান, মেয়েটির বাবার দায়ের করা অপহরণ মামলায় যুবককে গ্রেপ্তার দেখিয়ে সোমবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হবে। আর উদ্ধারকৃত কলেজছাত্রীর মেডিকেল পরীক্ষার জন্য সোমবার সকালে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে পাঠানো হবে।