আক্কেলপুরে স্ত্রীকে গরম রডের ছ্যাকা দিয়ে নির্যাতন, গ্রেপ্তার স্বামী

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে স্ত্রী খাদিজা খাতুন (২০) কে লিচু গাছের সঙ্গে বেঁধে শরীরের বিভিন্ন স্থানে লোহার রড গরম করে ছ্যাঁকা দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্বামী শাকিল হোসেনের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় পুলিশ স্বামী শাকিল হোসেন এবং তার বড় ভাই (গৃহবধূর ভাশুর) আসলাম হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে। 

বুধবার (২৭ মে) রাতে জেলার আক্কেলপুর পৌর শহরের শ্রীকৃষ্টপুর স্কুলপাড়া মহল্লায় এ ঘটনা ঘটে। 

জানা যায়, বুধবার রাতে খাদিজা খাতুন নামের ওই গৃহবধূকে তার স্বামী গাছের সঙ্গে বেঁধে গরম লোহার রড দিয়ে ছ্যাঁকা দিচ্ছিল। এসময় তার শ্বশুর-শ্বাশুড়ি উপস্থিত থাকলেও ছেলেকে বাধা না দিয়ে উসকে দেয়। খাদিজার চিৎকারে প্রতিবেশীরা বাড়ির দরজার গেট ভেঙে তাকে উদ্ধার করে আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। 

নির্যাতনের শিকার খাদিজা বলেন, ‘আমার তিন বছর আগে বিয়ে হয়েছে। সান্তাহারের লকু কলোনিতে আমার বাবার বাড়ি। স্বামী শাকিল হোসেন রাজমিস্ত্রির কাজ করে। বিয়ের পর থেকেই শ্বশুর-শাশুড়ি আমাকে সহ্য করতে পারে না। শ্বশুর-শাশুড়ির উসকানিতে সে বিভিন্ন সময় আমাকে মারধর করতো। বুধবার রাতে বাড়িতে ফিরে কোনও কিছু বুঝে ওঠার আগেই রান্না খারাপ হয়েছে বলে আমাকে মারধর করতে করতে লিচুর গাছ তলায় নিয়ে যায়। লিচু গাছের সঙ্গে হাত বেঁধে ফেলে। তখন  শ্বশুর-শাশুড়ি উঠানে দাঁড়িয়ে ছিলেন। স্বামী লোহার রড গরম করে আমার দুই গালে, দুই হাতে ও পায়ে ছ্যাঁকা দিতে থাকে। যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে আমি চিৎকার শুরু করি এবং জ্ঞান হারিয়ে ফেলি।'

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক নাজমুল হক বলেন, গৃহবধূর গাল, হাত ও পায়ে  গরম ছ্যাঁকার ক্ষত রয়েছে। তার স্বামী এ কাজ করেছেন বলে গৃহবধূ আমাদের জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু ওবায়েদ বলেন, এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার থানায় নির্যাতিত গৃহবধূর বাবা বাদী হয়ে চার জনকে আসামি করে মামলা করেছেন। মামলার পর তার স্বামী শাকিল হোসেন ও ভাশুর আসলাম হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছি। অন্যদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।