রাজশাহী সীমান্তে কঠোর অবস্থানে বিজিবি

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ এড়াতে রাজশাহী সীমান্তে কঠোর অবস্থানে রয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।  

এ সীমান্ত দিয়ে গরু, কসমেটিকস, শাড়িসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য চোরালান হয়ে আসে ভারত থেকে। ঈদের আগে তা আরও বেড়ে যায়। এ কারণে সীমান্তে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সর্বোচ্চ তৎপর হয়ে উঠেছে বিজিবি।

এরপরও এই অঞ্চলের চোরাচালানিরা রাতের আঁধারে লুকিয়ে সীমান্ত পাড়ি দিচ্ছেন বলে জানা যায়। তবে বিজিবি বলছে, জানুয়ারি থেকে এপ্রিল মাস পর্যন্ত বিজিবি-১ ব্যাটালিয়নের অধীনে থাকা সীমান্ত এলাকা দিয়ে কোনো অবৈধ অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটেনি।

রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী বিভাগে করোনা ভাইরাসে আরও সাতজনের মৃত্যু হয়েছে।  

এর মধ্যে সীমান্তঘেঁষা রাজশাহীতে একজন ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে দু’জন রয়েছে। এছাড়া করোনা আক্রান্ত হয়ে বগুড়ায় তিনজন এবং পাবনায় একজনের মৃত্যু হয়েছে।  

বিজিবি-১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল সাব্বির আহমেদ বলেন, নির্দেশনা আসার পর বিজিবি সীমান্তে নজরদারি আরও বাড়িয়েছে। করোনা সংক্রমণের মধ্যে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট যেন ছড়াতে না পারে সেজন্য বিজিবি সদস্যরা সীমান্তে কঠোর অবস্থানে আছেন। সর্বোচ্চ সতর্ক থেকে বিজিবি সদস্যরা সীমান্তে বিএসএফের সঙ্গে দিন ও রাতে সমন্বিত টহল দিচ্ছে। নিয়মিত পতাকা বৈঠক ও সৌজন্য সাক্ষাৎ করছে দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী। এছাড়া সীমান্তবর্তী এলাকার মানুষেকে এ ব্যাপারে সচেতন করছে।  

এতে সীমান্তবর্তী মানুষ এখন করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আগের চেয়ে অধিক সচেতন। আর সীমান্তে অপরাধ প্রবণতাও অনেকাংশে কমে গেছে। সীমান্ত এলাকায় অনুপ্রবেশ, চোরাচালান, হত্যাকাণ্ডসহ সব ধরনের অপরাধ প্রবণতা বন্ধে বিজিবি বদ্ধপরিকর বলেও উল্লেখ করেন ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক।