বগুড়ায় জমে উঠেছে ঐতিহ্যবাহী নবান্ন মাছের মেলা

সুন্দর করে সাজানো বিভিন্ন প্রজাতির মাছ, যেমন সিলভার কার্প, কাতল, চিতল, রুই, গ্লাসকার্প, ব্রিগেড, বাঘাইড়, বোয়াল মাছ সারিবদ্ধভাবে রেখেছে দোকানে। চলছে হাঁকডাক, দরদাম। এই মাছের মেলা গুলোতে ১ কেজি থেকে ২৫ কেজি ওজনের মাছ রয়েছে। মেলার আশেপাশ ও দূর দূরান্ত থেকে আগত ক্রেতারা  ব্যাপক উৎসাহের সঙ্গে ক্রয় করছেন এসব মাছ। আবার মেলায় মাছ দেখতেও এসেছেন অনেকেই।

জানা যায়, সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পঞ্জিকা অনুসারে বৃহস্পতিবার অগ্রহায়ণের এইদিনে নবান্ন উৎসব পালন করেন। প্রতিবছর এ উৎসবকে ঘিরে বগুড়ার শিবগঞ্জের ঐতিহাসিক মহাস্থান হাট, উথলী বাজার, মোকামতলা হাট, বসে মাছের মেলা। এছাড়াও নন্দীগ্রামের ওমরপুর, রণবাঘা, নাগরকান্দি, হাটকড়ই, ধুন্দার মাছের মেলা বসেছে।

মাছ মেলায় দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে মাছ এনেছেন মাছ চাষী ও মাছ ব্যবসায়ীরা। যে এলাকায় মাছের মেলা বসেছে সেই এলাকায় মেয়ে-জামাইসহ আত্বীয় স্বজনদের আগে থেকেই দাওয়াত দেওয়া হয়।

মেলায় ১৮০থেকে ৪৫০ টাকা কেজি দরে ব্রিগেড ও সিলভার কার্প মাছ বিক্রি হচ্ছে। রুই ও কাতল মাছ বিক্রি হচ্ছে ২২০ থেকে ৬৫০ টাকা কেজি দরে। চিতল ও গ্লাসকার্প মাছ ওজন ভেদে ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও ১২ কেজি ওজনের গজাইড় মাছ ১৫০০ টাকা কেজি দরে দাম চাওয়া হচ্ছে। মেলায় উঠেছে নতুন আলু, লাউ, গাজর, সিম, জল সিঙ্গেরা, ফুল কপিসহ শীতকালীন বিভিন্ন প্রকারের সবজি। দই, চিরে, মিষ্টি, রসমালাই, মুড়ি, মুড়কীসহ বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রীও আছে।

এছাড়াও মেলায় মাছের পাশাপাশি ছোট বাচ্ছাদের খেলনাসহ সকল পণ্য পাওয়া যায়। প্রতিবারের মতো এবারও ক্রেতা সমাগম চোখে পড়ার মতো হলেও মাছের দাম অনেকটা স্বাভাবিক বলে জানান ক্রেতা ও বিক্রেতারা।

নারায়নপুর গ্রামের শ্রী প্রশান্ত সাহা এ বলেন, সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পঞ্জিকা অনুসারে যুগ যুগ ধরে অগ্রহায়ণ মাসের এইদিন নবান্ন উৎসব পালন করেন। সেই নবান্ উৎসবকে ঘিরেই এ মাছের মেলা বসে। দিন যতই যাচ্ছে এই মেলার ঐতিহ্য ততই বাড়ছে।

মাছ ব্যবসায়ী মোঃ বাদশা মিয়া এ প্রতিবেদক-কে বলেন, মেলায় ছোট-বড় মিলে প্রায় শতাধিক মাছের দোকান বসেছে। প্রত্যেক বিক্রেতা অন্তত ১০ থেকে ২০মণ করে মাছ বিক্রি করবেন।

বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক সমাজ শিবগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি তাজমিলুর রহমান (সাইদুর মাস্টার) বলেন, দুইশত বছরের ঐতিহ্য উথলী বাজারে নবান্ন উৎসব উপলক্ষে মাছের মেলা। দিনব্যাপী এই মেলায় নিত্য নতুন জিনিসপত্র পাওয়া যায়। এই মেলার প্রধান আকর্ষণ বিভিন্ন প্রজাতীর বড় বড় মাছ। বিভিন্ন জেলা থেকে মাছ চাষী ও মাছ ব্যবসায়ীরা বড় বড় মাছ মেলায় বিক্রি করতে আসেন। মেলার আশপাশের সকল বাসিন্দরা মেয়ে-জামাইসহ আত্বীয় স্বজনদের আগে থেকেই দাওয়াত করেন।