লালপুরে ইমো প্রতারক চক্রের ৫ সদস্য গ্রেপ্তার

নাটোরের লালপুরে র‌্যাব-পুলিশের অভিযানে ইমো হ্যাকিং চক্রের ৫ প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে।

বুধবার তাঁদের জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এর আগে গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে উপজেলার বালিতিতা ও মহারাজপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন—উপজেলার বালিতিতা ইসলামপুর গ্রামে মো. রেজাউল করিমের ছেলে মো. আলমগীর হোসেন (২০), মহারাজপুর গ্রামের মো. সামান উদ্দিনের ছেলে মো. তারিক হোসেন (১৬), মো. মোখলেছুর রহমানের ছেলে মো. রাজু হোসেন (১৬), মো. সাজদার রহমানের ছেলে মো. আসিফ হোসেন (১৫) ও কুষ্টিয়ার ভেড়ামারার সাতবাড়িয়া মণ্ডলপাড়া গ্রামের মো. জাবের আলীর ছেলে মো. হারুন অর রশিদ (২৬)।

সিপিসি-২, নাটোর ক্যাম্প, র‌্যাব-৫, রাজশাহী সূত্রে জানা যায়, গোয়েন্দার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে কোম্পানি অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ফরহাদ হোসেন ও উপ-অধিনায়ক সহকারী পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে গতকাল রাতে বালিতিতা ও মহারাজপুর গ্রামে অভিযান চালানো হয়। এ সময় ওই পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁদের কাছ থেকে ১০টি মোবাইল ও ১৭টি সিম কার্ড জব্দ করা হয়।

এ বিষয়ে কোম্পানি অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ফরহাদ হোসেন বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা স্বীকারোক্তি দেন যে দীর্ঘদিন যাবৎ ইলেকট্রনিক ডিভাইস ও ইন্টারনেট ব্যবহার করে প্রবাসীসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ইমো হ্যাক করে আসছিল। পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন প্রতারণা করে তাঁদের পরিচিতজনদের কাছ থেকে মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশের মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নেয়।

লালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফজলুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে থানায় মামলা করা হয়েছে। আজ তাঁদের আদালতের মাধ্যমে নাটোর জেলহাজতে পাঠানো হয়। এলাকা ছেড়ে যারা দেশের বিভিন্ন স্থানে গা-ঢাকা দিয়েছে তাঁদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।