রায় পেছানোয় শঙ্কিত আবরারের ছোট ভাই

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী কুষ্টিয়ার কুমারখালী কয়া ইউনিয়নের আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার রায় ঘোষণার দিন পেছানোতে আশংকা প্রকাশ করেছেন তার ছোট ভাই ফায়াজ।

রবিবার (২৮ নভেম্বর) আদালতের রায় ঘোষনার দিন পিছিয়ে ৮ ডিসেম্বর পুনঃনির্ধারণ করায় হতাশা প্রকাশ করেন তিনি।

এ ব্যাপারে রবিবার দুপুরে আবরার ফায়াজের সাথে কথা বললে  মামলার রায় পেছানো নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বলেন,  রায় ঘোষণার দিন ধার্য করে রায় প্রস্তুত না হওয়াটা হতাশাজনক। আমরা তো অনেক আশা করেছিলাম রবিবার রায় ঘোষণা করা হবে। আদালত যে কী কারণে রায় ঘোষণার দিন পেছালেন সেটা তারা ভালো জানেন।

এ সময় আবরার ফায়াজ আরো  বলেন, 'রায় পেছানো নিয়ে আমরা শঙ্কিত। কারণ বাংলাদেশে রায় পেছানোর ইতিহাস ভালো না। সাগর-রুনি হত্যা মামলার রায় যেমন বারবার পেছাচ্ছে।'

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর রাতে আবরারকে তার হলের কক্ষ থেকে ডেকে নিয়ে যান বুয়েট ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী। তারা ২০১১ নম্বর কক্ষে নিয়ে গিয়ে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করে। পরে রাত ৩টার দিকে শেরে বাংলা হলের সিঁড়ি থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ওই বছরের ৭ অক্টোবর রাজধানীর চকবাজার থানায় আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে ১৯ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন।

ওই বছরের ১৩ নভেম্বর ২৫ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। এরপর গত বছর ১৫ সেপ্টেম্বর ২৫ আসামির বিরুদ্ধে চার্জগঠন করে বিচার শুরু করেন আদালত। পুলিশ পরে ২২ জনকে গ্রেফতার করে। এর মধ্যে আটজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন। পলাতক এখনো তিনজন। এদের সবাই বুয়েট ছাত্রলীগের নেতাকর্মী।