বগুড়ায় দিনমজুর হত্যার রহস্য উদঘাটন

বগুড়ায় দিনমজুর শমসের আলী (৫২) হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। এ ঘটনায় একমাত্র আসামি মোস্তফাকে (৪০) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 


গত সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ৮টায় নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ডালিয়া থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।


মোস্তফা ডিমলা উপজেলার বাইশপুকুর গ্রামের সাহাবুল্ল্যাহর ছেলে। নিহত শমসের ডিমলা উপজেলার ছাতুনামা গ্রামের মৃত নহর উদ্দিনের ছেলে। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় পুলিশ সুপার আকরামুল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


পুলিশ সুপার আকরামুল হোসেন জানান, মোস্তফা এবং শমসের দীর্ঘদিন যাবৎ বগুড়াসহ বিভিন্ন জেলায় জমিতে কৃষি কাজ করতেন। গত ২৮ জুন মোস্তফা ও শমসের শাখারিয়ার কবিরাজপাড়া গ্রামে যার যার কাজে বের হয়ে যায়। কাজ শেষে সন্ধ্যায় তারা সবাই রাত্রী যাপনের জন্য  স'মিলে ফেরার পথে পাঁচতারকা হোটেল মম ইন পার্কের পেছনে করতোয়া নদীর ধারে তাদের দেখা হয়। এসময় মোস্তফা-শমসের আলী হাসি-ঠাট্টাসহ বিভিন্ন মজার আলাপ করতে থাকেন। হাসি-ঠাট্টার একপর্যায়ে মোস্তফা ডান পা দিয়ে শমসেরের বিশেষ অঙ্গে লাথি মারেন। আঘাতের ফলে শমসের মাটিতে পড়ে যায় এবং তার মৃত্যু হয়।


পুলিশ সুপার আরও জানান, পরে মোস্তফা লাইননের রশি দিয়ে মৃত শমসেরের হাত বাঁধে এবং গলায় থাকা গামছা পেঁচিয়ে শমসেরের লাশ সেখানে ফেলে চলে আসে। পরদিন স্থানীয় শমসেরের লাশ দেখে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। সদর থানায় একটি হত্যা মামলা হয় এবং মামলাটি পিবিআই তদন্ত শুরু করে হত্যার রহস্য উদঘাটন এবং মূল আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়।