যে কারণে শূন্যে লাফিয়ে গোল উদযাপন করেন রোনালদো

বর্তমান সময়ের সেরা খেলোয়াড় কে এই প্রশ্নে দ্বিধাবিভক্ত ফুটবল দুনিয়া। এই প্রশ্নে কেউ উচ্চারণ করে লিওনেল মেসির নাম আবার কেউ ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর নাম। এই তর্কটা হয়তো চলবে চিরকাল। তবে রোনালদো যে বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় সেটা মেনে নিতে আপত্তি নেই কারও।

দুর্দান্ত গতি আর অসাধারণ সব ড্রিবলিংয়ের জন্য বিখ্যাত পর্তুগিজ যুবরাজ। দুই পায়েই নিতে পারেন বিদ্যুৎ গতির শট। সেইসাথে হেডে তার তুলনা নেই কারও সাথেই। প্রায় প্রতিটি বিভাগে স্বয়ংসম্পূর্ণ এমন খেলোয়াড় পুটবল বিশ্ব খুব কমই দেখেছে।

ক্লাব ক্যারিয়ারে খেলেছেন পোর্তো, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, রিয়াল মাদ্রিদ ও জুভেন্টাসের মতো ক্লাবে। যেখানেই গেছেন পরেছেন সাত নম্বর জার্সি। তাই তাকে অনেকেই সিআরসেভেন নামে চেনেন।

এই তারকার আরও একটি বিশেষ দিক আছে। সেটা হলো গোল উদযাপন। সবার থেকে ভিন্ন ভঙ্গিতেই তিনি গোল উদযাপন করে থাকেন। গোল করলেই শূন্যে লাফিয়ে উঠবেন পর্তুগিজ মহাতারকা। এবং মাটিতে নেমেই দু’হাত ছড়িয়ে এক বিশেষ ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে পড়বেন। মুখ থেকে বেরিয়ে আসবে ‘সি’ শব্দটা। ইংরাজিতে যার অর্থ ‘ইয়েস’ (হ্যাঁ)।

প্রশ্ন হচ্ছে কেন এমন উদযাপন তার? গোলের স্টাইল নিয়ে মুখ খুলেছেন রোনালদো। এক নামী ক্রীড়াসরঞ্জাম প্রস্তুতকারক সংস্থার ওয়েবসাইটে জানান, এ ভাবে উৎসব করাটা তিনি কারও কাছ থেকে শেখেননি। পুরোটাই স্বাভাবিক, সহজাত ভাবে নিজে থেকেই এসেছে। সেই উৎসব জনপ্রিয় হওয়ায় বারবার তা করেও যাচ্ছেন।

রোনালদো বলেন, ২০১৩ সালে রিয়ালে খেলার সময় আমরা একবার যুক্তরাষ্ট্র সফরে যাই। সেখানে একটা ম্যাচ ছিল চেলসির সঙ্গে। আমি নিজেও জানি না, কী ভাবে ওই ভাবে গোলের পরে হাত ছড়িয়ে দাঁড়িয়ে পড়লাম। পুরো ব্যাপারটাই নিজে থেকে ঘটেছিল। এটার জন্য কোনও মহড়ার দরকার হয়নি। হঠাৎই করে ফেলেছিলাম। ওই ম্যাচে গোল করার পরে স্বাভাবিক ভাবেই সেটা ঘটেছিল।

তিনি বলেন, ঘটনাটা ঘটে যাওয়ার পরে বুঝলাম সত্যিই ব্যাপারটা উপভোগ করেছি। তার পরেই ওই রকম করতে শুরু করি।