স্বামী-স্ত্রীর বয়সের পার্থক্য কত হওয়া উচিত জেনে নিন

স্বামী-স্ত্রীর বয়সের পার্থক্য কম হওয়া উচিত সুখী হওয়ার জন্য। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বয়সের পার্থক্য কম হলে একে অপরের মন বুঝে চলার প্রবণতা দেখা যায়। এতে সংসারের স্থায়িত্ব বজায় থাকে।

সম্প্রতি এক গবেষণায় এটি প্রমাণিত হয়েছে। গবেষণাটি হাজার হাজার মানুষের ওপর সমীক্ষা করে তারপর করা হয়েছে। গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে সব স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বয়সের পার্থক্য খুব বেশি তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ হওয়ার সম্ভাবনা দেখা যায়।

দম্পতির বয়সের পার্থক্য পাঁচ বছর তাদের বিবাহ-বিচ্ছেদের আশঙ্কা ১৮ শতাংশ বেশি সমবয়সীদের তুলনায়। বয়সের পার্থক্য বেশি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এই বিচ্ছেদের আশঙ্কাও বেড়ে যায়।

আমাদের দেশে সাধারণত স্বামী স্ত্রীর বয়সের পার্থক্য কে খুব একটা প্রাধান্য দেওয়া হয় না। কিন্তু একটি সুখী দম্পতি হবার জন্য এই বয়সের পার্থক্য দেখা খুব প্রয়োজন। বয়সের পার্থক্য কম হলে দম্পতির মধ্যে সম্পর্কের মধ্যে বন্ধুত্বের বন্ধন তৈরি হয়। যা তাদের মধ্যে বিচ্ছেদের আশঙ্কা কমিয়ে দেয়।