ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপে নিয়ন্ত্রণে চাই চিজ!

ডায়াবিটিস নিয়ন্ত্রণের জন্য ডায়েটে রাখতে পারেন চিজ, জানাচ্ছে গবেষণা।চিজ এমন এক ধরনের খাবার যাতে রয়েছে প্রোটিন এবং দুধের চর্বি, সাধারণত গরু, মহিষ, ছাগল ও ভেড়ার দুধ থেকে এটি তৈরি করা হয়। এটি দুধের প্রধান প্রোটিন কেসিন থেকে তঞ্চন বা জমাট বাঁধার মাধ্যমে তৈরি করা হয়। দুধে এনজাইম (রেনেট) যোগ করার ফলে দুধে জটবন্ধন হয়ে ছানায় পরিণত হয়।


মূলত দীর্ঘ দিন দুধ সংরক্ষণের উদ্দেশ্যেই চিজ তৈরি করা শুরু হয়। প্রযুক্তিহীন প্রাচীন সমাজে ঠান্ডায় তা দীর্ঘ দিন ভাল থাকত। ফলে মানুষের পুষ্টিরও জোগান দিত। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে চিজের জগতেও যুক্ত হয়েছে কত নাম। মোৎজারেলা, পারমেশান, ফেটা, সুইস চিজ, চেডার আরও কত কী।


পুষ্টিবিদদের মতে, চিজ প্রোটিনের ভাল উৎস। তাই নিরামিষাশীরা রোজ খাবারে চিজ রাখতে পারেন। চিজে ক্যালশিয়ামও ভরপুর মাত্রায় থাকে। আমাদের দেশের মহিলারা অনেক সময়েই ক্যালশিয়ামের অভাবে ভোগেন। বিশেষত ঋতুবন্ধের পর থেকেই হাড়ের সমস্যা দেখা দেয়। এই সময় অস্টিয়োপোরোসিসের সমস্যায় ভোগেন অনেকেই। তাই রোজকার খাবারে চিজ রাখতে পারেন। ডায়েটে ফ্যাটের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে সেখানে চিজ সংযোজন করাই যায়। তবে অবশ্যই তা ব্যক্তিবিশেষের স্বাস্থ্য অনুযায়ী ঠিক করতে হবে।


কিছু কিছু চিজের মধ্যে আবার ভিনিগার, লেবুর রস মিশিয়ে তাকে অন্যরকম করে তোলা হয়। চিজ অনেকদিন সংরক্ষণ করা যায়। বিভিন্ন পুষ্টিকর খাদ্য তৈরীর ক্ষেত্রে এটি ব্যবহার করা যেতে পারে। চিজে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং খনিজ থাকে। এটি বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্য সুবিধা দিতে পারে।


শরীরে সোডিয়াম এবং কোলেস্টেরলের পরিমাণ যদি হঠাৎ বৃদ্ধি পায় সে ক্ষেত্রে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা দেখা যায়। চিজ এর মধ্যে খুব কম মাত্রায় সোডিয়াম থাকে, যে কারণে এটি শরীরে রক্তচাপ কে বাড়তে দেয় না। এছাড়াও চিজ এর মধ্যে থাকা ভিটামিন বি উচ্চ রক্তচাপকে কম করতে সহায়তা করে। এক্ষেত্রে চিজ নির্বাচনের ক্ষেত্রে একটু দামি চিজ ব্যবহার করা ভালো। কেননা বাজারচলতি কম দামি চিজ গুলির ক্ষেত্রে উচ্চ মাত্রায় কোলেস্টেরল এবং সোডিয়াম জাতীয় সামগ্রী থাকে। যারা উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় ভুগছেন তারা চিজ কেনার আগে তার উপাদান সামগ্রী দেখে তারপরে তা নির্বাচন করুন।


সম্প্রতি বিএমজে নিউট্রিশন, প্রিভেনশন জার্নালে প্রকাশিত এক সমীক্ষায় বলা হয়েছে এক বিশেষ প্রকার চিজ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। গবেষকদের মতে, জার্লসবার্গ নামক এক বিশেষ ধরনের চিজে এই ক্ষমতা আছে। গবেষণায় দাবি করা হয়েছে, এই চিজ রোজের ডায়েটে রাখলে রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা ও গ্লুকোজের মাত্রা দুই-ই কমে।