২০২৩ সালে উন্মোচিত হবে আইফোন ১৫ সিরিজ

অ্যাপলের বর্তমান প্রজন্মের আইফোন ১৪ প্রো এবং আইফোন ১৪ প্রো ম্যাক্স দুটি ফোনই প্রিমিয়াম স্মার্টফোন সেগমেন্টে জনপ্রিয়তা ও গণগতমানের দিক থেকে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে।


অত্যাধানুকি ক্যামেরা, অলয়েজ-অন ডিসপ্লে এবং ইন্টার‍্যাক্টিভ ডায়নামিক আইল্যান্ড- এই দুটিই হটেস্ট আইফোন হিসেবে নিজেদের মেলে ধরেছে। এর মধ্যেই আবার কুপার্টিনোর প্রযুক্তি জায়ান্টটি পরবর্তী প্রজন্মের আইফোন নিয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছে ২০২৩ সালে উন্মোচিত হবে আইফোন ১৫ সিরিজ। অন্যান্য আইফোন মডেলগুলোর মতোই এই সিরিজেও থাকবে প্রো সংস্করণ।


বাজার বিশ্লেষকরা জানাচ্ছেন, আইফোন ১৪ প্রো’র তুলনায় অনেকাংশেই আলাদা হতে চলেছে পরবর্তী প্রজন্মের ফোনটি।


জল্পনা চলছে, অ্যাপলের আসন্ন প্রো ম্যাক্স মডেলটিকে আইফোন ১৫ প্রো আল্ট্রা বলা হবে।


ব্লুমবার্গের মিং-চি কুও দাবি করেছেন, অ্যাপল ওয়াচ আল্ট্রার জন্য আইফোন প্রো ম্যাক্স মডেলগুলোর নাম বদলে প্রো আল্ট্রা করা হচ্ছে।


জানা গেছে, মূলত একটা প্রিমিয়াম ফিল দিতেই ম্যাক্সের পরিবর্তে আল্ট্রা দেওয়ার চিন্তা-ভাবনা করেছে অ্যাপল। এছাড়াও আইফোন ১৫ প্রো মডেলে থাকতে পারে একটি পেরিস্কোপ লেন্স। একটি পেরিস্কোপ ক্যামেরা মূলত আলো বেন্ড করার জন্য আয়না বা প্রিজমের সংমিশ্রণ ব্যবহার করে। স্যামসাং এবং হুয়াওয়ের মতো স্মার্টফোন নির্মাতারা তাদের জুমিং পরিসর উন্নত করতে ক্যামেরার জন্য পেরিস্কোপ মডিউল তৈরি করতে একই কনসেপ্টের সাহায্য নিয়েছে।


অ্যাপল ওয়াচ আল্ট্রায় যেমন টাইটানিয়াম কেস দেওয়া হয়েছে, নতুন আইফোন ১৫ প্রো মডেলেও থাকবে তেমনই টাইটানিয়াম বডি। তার ব্যাক প্যানেলে যদিও গ্লাস দেওয়া হবে। থাকতে পারে রাউন্ডেড ব্যাক প্যানেল।


এই প্রথম কোনও আইফোনে ইউএসবি-সি চার্জিং পোর্ট দেওয়া হতে পারে। ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন সমস্ত ডিভাইসে এক চার্জার প্রয়োগের জন্য নয়া নীতি নিয়েছে। ই-বর্জ্য কমাতে মোবাইল, ল্যাপটপসহ সমস্ত ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসের জন্য এই চার্জিং পোর্টের বাধ্যতামূলক করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন। বিশ্বের আরও বিভিন্ন দেশ এই নীতি পরবর্তীতে বলবৎ করতে পারে। ভারতও সেই পথে হাঁটছে। তাই কিছুটা বাধ্য হয়েই লাইটনিং পোর্টের পরিবর্তে অ্যাপল তার পরবর্তী আইফোন মডেলগুলোতে ইউএসবি-সি দিবে।